দুর্বল ও ছোট লিঙ্গ ১-৩ ইঞ্ছি লম্বা ও মোটা

দুর্বল ও ছোট লিঙ্গ ১-৩ ইঞ্ছি লম্বা ও মোটা

গোপন সমস্যা স্বাস্থ্য
শেয়ার করুন:

লিঙ্গ বড় করার কিছু উপায় সর্ম্পকে আজকে আপনাদের সাথে কথা বলব। আমাদের দেশের অনেক মানুষ আছেন যারা তাদের লিঙ্গ বড় করার বেশ কিছু টেকনিক জানার চেষ্টা করে। কিন্তু সত্যি কথা বলতে তেমন কোনো ভালো মানের গাইড লাইন নেই। আমাদের দেশে অনেক হারবাল বা হোমিপ্যাথিক চিকিৎসা করানোর জন্য চেষ্টা করেন কিন্তু তেমন কোনো ফলাফল আসলে সেখান থেকে আশা করা খুব একটা সমীচীন নয়।

এগুলো মূলত অনেক সময়ই কিংবা বলা যেতে পারে বেশিরভাগ সময়ই ভুলভাল চিকিৎসা দিয়ে থাকে। সত্যি কথা বলতে লিঙ্গ বড় হবে নাকি ছোট হবে সেটি মূলত নির্ভর করে আপনার লিঙ্গের মধ্যে রক্তচাপের পরিমাণের উপর।

আপনার লিঙ্গে যদি রক্তচাপের পরিমাণ বেশ ভালো থাকে, তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই আপনার লিঙ্গ অধিকতর মোটা ও বড় হবে। কিন্তু লিঙ্গে রক্তচাপের পরিমাণ কম হলে সাধারনত আমাদের মাংসপেশীগুলো শুকিয়ে যায়। ফলে আমাদের লিঙ্গও খুব েএকটা বড় হয় না।

মূলত সঠিক পদ্ধতিতে কিছু ব্যায়াম করানোর মাধ্যমে আমরা চাইলে আমাদের এই লিঙ্গকে আমরা বড় ও মোটাতাজা করতে পারি। সঠিক পদ্ধতির পরিবর্তে ভুল পদ্ধতি অবলম্বন করলে হিতে বিপরীত হতে পারে।

তাই অবশ্যই ব্যায়ামগুলো করানোর সময় আপনাদের সর্তক থাকতে হবে। এখানে যেভাবে বলা হয়েছে ঠিক সেভাবেই আপনাকে ব্যায়ামগুলোকে অবলম্বন করতে হবে।

শেকিংঃ
প্রথমে আপনার লিঙ্গটিকে গোড়ার দিকে দুই আঙ্গুলে ধরুন (শিথিল অবস্থায়)। এরপর সেটাকে আস্তে আস্তে ঝাঁকাতে শুরু করুন। গতি বাড়ান এভাবে একটানা ২০০-২৫০ বার ঝাঁকান মাঝে মাঝে আপনার ইরেকশন হতে পারে। ইরেকশন হলে লিঙ্গকে শিথিল হওয়ার জন্য কিছু সময় দিন।

তারপর আবার করুন এভাবে দিনে দুইবার করুন এটা করার সময় আপনার হস্তমৈথুনের ইচ্ছা জাগতে পারে। ইচ্ছাটাকে পাত্তা দিবেন না। এটা করার সময় যদি হস্তমৈথুন করেন তাহলে ব্যায়াম করা আর না করা সমান কথা।

যদি ২০০-২৫০ বারের আগেই বীর্য বেরিয়ে যেতে চায় তাহলে থামুন। উত্তেজনা প্রশমিত হলে আবার করুন এটা করলে আপনার পুরুষাঙ্গে রক্ত সঞ্চালন আশাতীত ভাবে বাড়বে। একটু কষ্ট করে হলেও এক্সারসাইজ চালু রাখুন বাদ দেবেন না।

জেল্কিংঃ
প্রথমে লিঙ্গকে পানিতে ধুয়ে নিন এবং মুছে ফেলুন। এরপর খানিকটা ক্রিম বা জেল জাতীয় পিচ্ছিল জিনিস, (তেল জাতীয় জিনিস হলেও হবে) জোগাড় করুন।

এটি লিঙ্গকে ভালভাবে মাখান (শিথিল অবস্থায়)। এবার বুড়ো আঙ্গুল এবং তর্জনীরসাহায্যে ”OK” সাইন এর মত করুন। এবার এই ”OK” সাইন দিয়ে পেনিসের গোড়া ধরুন (একটু জোরে চেপে ধরতে হবে)। এবার আস্তে আস্তে ভেতর থেকে বাইরের দিকে মর্দন করুন। জিনিসটা অনেকটাই হস্তমৈথুনের মতই।

কিন্তু খেয়াল রাখবেন এটা শুধু পেনিসের গোঁড়া থেকে অগ্রভাগের দিকে। উল্টা দিকে করবেন না। এভাবে ৩০-৪০ বার করুন। দিনে দুইবার। এটি করার সময় আপনি নিজেই টের পাবেন যে আপনার লিঙ্গমুণ্ডে রক্তের চাপ বাড়ছে।

মাঝে মাঝে আপনার ইরেকশন হতে পারে ইরেকশন হলে লিঙ্গকে শিথিল হওয়ার জন্য কিছু সময় দিন। এটা করার সময় আপনার হস্তমৈথুনের ইচ্ছা জাগতে পারে। ইচ্ছাটাকে পাত্তা দিবেননা।

যদি ৩০-৪০ বারের আগেই বীর্য বেরিয়ে যেতে চায় তাহলে থামুন। উত্তেজনা প্রশমিত হলে আবার করুন এটি করার সময় লিঙ্গমুণ্ডে সামান্য সাময়িক ব্যাথা বোধ হতে পারে। এছাড়া আপনি দেখবেন লিঙ্গমুণ্ডকে লাল হয়ে ফুলে উঠতে। রক্তের চাপের কারনে এমন হয়।

স্ট্রেচিংঃ
প্রথমে লিঙ্গমুণ্ড পাঁচ আঙ্গুলে সামনে থেকে চেপে ধরুন। এবার এটাকে সামনের দিকে টেনে ধরুন। এমনভাবে ধরে রাখুন যাতে পিছলে না যায়। এভাবে ২০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। ২০ সেকেন্ড পর ছেড়ে দিন। এভাবে একটানা ২০ বার করুন (দিনে ২ বার)। মাঝে মাঝে আপনার ইরেকশন হতে পারে৷ ইরেকশন হলে লিঙ্গকেকে শিথিল হওয়ার জন্য কিছু সময় দিন তারপর আবার করুন৷

এর ফলে ধীরে ধীরে আপনার পুরুষাঙ্গ দীর্ঘতায় বাড়বে৷ যে তিনটি ব্যায়ামের কথা বলা হয়েছে সেগুলো একত্রে প্রতিদিন দুইবার করে করুন। একসাথে না করলে লাভের সম্ভাবনা কম। এক্সারসাইজের সময় হস্তমৈথুন করবেন না। হস্তমৈথুনকরলে ব্যায়াম করার কোন দরকারই নাই। কারন তাতে কোন লাভ হবেনা।

পেনিস মোটা করার উপায়:


এটি একটি স্পর্শকাতর ব্যাপার, এটি স্বাস্থ্যগত দিক থেকে একে অবহেলার সুযোগ নেই।
লিংগ মোটা করার উপায় জানতে চেয়েছেন অনেকে।কারণ অনেকে প্রশ্ন করেছেন “আমার লিঙ্গের আগা মোটা । এটা নিয়ে আমি খুব চিন্তিত । এটা সারানোর জন্য কোন ওষধ আছে কিনা । যৌন মিলনের ক্ষেত্রে এটি কি কোন প্রভাব ফেলবে কিনা এবং সহজভাবে প্রাকৃতিক উপায়ে লিংগ মোটা করার উপায় কি? ।”

লিঙ্গের আগা মোটা গোড়া চিকন সমস্যাসহ আরো কিছু প্রশ্নের উত্তর দেখে নিন যাদের লিংগ চিকন বা ছোট তাদের জন্য লিংগ মোটা করার উপায়
গোড়া থেকে আগার দিকে গিয়ে লিঙ্গের মাথায় গিয়ে কিছুক্ষন (৬/৭ সেকেন্ড) চেপে ধরে রাখতে হবে

১. টয়লেট কিংবা আপনার নিজের রুমের দরজা ভাল করে বন্ধ করে চেয়ার কিংবা চৌকিতে পা ঝুলিয়ে বসুন। অর্থাৎ এমন স্থানে বসবেন না যেখানে সবসময় মনে হবে কেউ এসে যাচ্ছে অথবা দেখে ফেলছে।

২. পরনের কাপড় সরিয়ে আপনার লিঙ্গকে হালকা উত্তেজিত করুন। (এমন ভাবে উত্তেজিত করবেন না যাতে বীর্জ বেরিয়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকে)।

৩. এবার দুই হাতে হালকা সরিষার তেল কিংবা পার্সোনাল লুব (ঔষধের দোকানে পাওয়া যাবে) লাগিয়ে নিন।

৪. আপনার বৃদ্ধাঙ্গুল এবং তর্জনী আঙ্গুল এর আগা একে অপরের সাথে এমনভাবে যুক্ত করুন যাতে মাঝে গোলাকার (যেভাবে আমরা ok sign ইশারা করি) ছিদ্রের মত হয়। এবার এই রকম হাতে লিঙ্গের গোড়ার দিক থেকে লিঙ্গের গা ঘেষে (ছিপে ধরে) লিঙ্গের আগার দিকে হাত সঞ্চালন করুন (যেভাবে গরুর দুধ ধোওয়া হয় অথবা কোন ফাপা নল থেকে সবটুকু তরল বের করার জন্য আমরা যেভাবে গোড়া থেকে আগার দিকে হাত চালাই)।

৫. লিঙ্গের আগার কাছাকছি হাত পৌছালে লিঙ্গকে কিছুক্ষন চেপে ধরে রাখুন। তারপর ডান হাত ছেড়ে দিয়ে বাম হাত একই ভাবে গোড়া থেকে শুরু করে আগার দিকে নিয়ে যান। এবং এই হাতটিও কিছুক্ষনের জন্য অগ্রভাগে ধরে রাখুন। এক হাতের একবার করে সঞ্চালন করাকে আমরা এক রিপিট গননা করবো।

৫. ব্যায়ামটি প্রতিদিন ৪০ বার রিপিট করবেন।লিংগ মোটা করার উপায় হিসাবে এই ব্যায়াম খুবই কার্য
করী।

বিঃদ্রঃ তবে মনে রাখবেন লিংগ মোটা করার উপায় হিসাবে ব্যায়াম করবেন ভালো কিন্তু ব্যায়াম করার সময় যদি হস্তমৈথুনকরেন, তবে ব্যায়ামেন কোন মানেই নেই।

প্রায় একশত বছরের বেশি সময় ধরে এর জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা অথবা চেষ্টা করেও লিংগ মোটা করার উপায় বা লিঙ্গের আকার পরিবর্তনে তেমন একটা ভাল ফলাফল/আবিষ্কার এখন পর্যন্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে এটা সত্য যে – বিভিন্ন খাবার বড়ি, ক্রিম, ব্যায়াম, লকিং মেশিন এবং অস্ত্রপ্রচারের মাধ্যমে এখন মানুষ তার লিংগ মোটা করার উপায় হিসাবে বা লিঙ্গের আকার পরিবর্তনের চেষ্টা করে থাকে। কিন্তু সত্যিকার অর্থে তাদের কোনটিই কার্যকর হয়না। বরং এ রকম চেষ্টার ফলে অনেক পুরুষই লিঙ্গত্থান সমস্যাসহ নানবিধ যৌন জটিলতায় পতিত হচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

প্রায় অর্ধেক প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষ মনে করেন তাদের পুরষাঙ্গ অনেক ছোট। বিশ্বজুড়ে সাধারনত উত্তেজিত অবস্থায় পুরুষ লিঙ্গের গড় দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে 4.7 থেকে 6.3 ইঞ্চি। অনেকের মতে পেনিসের গড় দৈর্ঘ্য ৫.১-৫.৯ ইঞ্চি। তবে লিঙ্গের আকার ব্যাক্তি এবং অঞ্চলভেদে অনেক পার্থক্য দেখা যায়। বিরল ক্ষেত্রে পারিবারিক (জেনেটিক) এবং হরমোন জনিত সমস্যার কারনে ৩ ইঞ্চির চেয়েও অনেক ছোট লিঙ্গ দেখা যায়। চিকিত্সা শাস্ত্রে এটি মাইক্রোপেনিস নামে পরিচিত। তবে পেনিস ৪(চার) ইঞ্চি হলেই স্ত্রীকে অর্গাজন দিতে কোনো প্রকার অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। অনেকের ক্ষেত্রে প্রোষ্টেইট ক্যান্সার অপারেশান সহ নানা রোগের কারনে লিঙ্গের আকার ছোট হয়ে যেতে পারে।

প্রশ্নকর্তা বলেছেন বলেছেন আপনার লিঙ্গটি খুব ছোট। উত্তেজিত অবস্থায় পুরুষ লিঙ্গের গড় দৈর্ঘ্য হয়ে থাকে 4.7 থেকে 6.3 ইঞ্চি। এটা ভৌগলিক অবস্থান ভেদে বিভিন্ন দেশের পুরুষদের আবার বিভিন্ন আকারের হয়। কিন্তু আপনার লিঙ্গ বা পেনিস যদি লম্বায় সর্বনিম্ন 4 (চার) ইঞ্চিও হয়ে থাকে তাহলেও আপনার স্ত্রীকে তৃপ্তি দেয়ার জন্য এটুকুই যথেষ্ট। অনেক বিশেষজ্ঞদের মতে ৩ ইঞ্চি পেনিস দিয়েও স্ত্রীকে আনন্দ দেয়া সম্ভব যদি সে যৌন মিলনের নানা কলা কৌশল আয়ত্ত করতে পারে। কারণ একটা Successful Sexual Intercourse শুধু মাত্র পেনিসের আকারের উপর নির্ভর করে না, এর জন্য আপনাকে যৌন মিলনের নানা কলা কৌশল রপ্ত করা উচিত। মনে রাখবেন নারীদের যৌনাঙ্গে এক প্রকার খাজ কাটা থাকে যাতে ঘসা লাগলে তারা আনন্দ পায়। তার জন্য মাত্র ১০-১২ বছরের ছেলেদের লিঙ্গ দিয়েও তাদের আনন্দ দেয়া সম্ভব। বিরাট লম্বা পেনিসের কোনই প্রয়োজন নেই।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *