তৃতীয় অধ্যায়: ষ্টোরেজ মিডিয়া, জিপ ড্রাইভ কি?

তৃতীয় অধ্যায়: ষ্টোরেজ মিডিয়া, জিপ ড্রাইভ কি?

এইচ এস সি পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা
শেয়ার করুন:

তৃতীয় অধ্যায় ষ্টোরেজ মিডিয়া

ক. জিপ ড্রাইভ কি?

উত্তর: জিপ ড্রাইভটি একটি অপসারণযােগ্য ফ্লেপি ডিস্ক স্টোরেজ সিস্টেম যা 1994 সালের শেষদিকে lomega দ্বারা প্রবর্তিত হয়েছিল।

মুক্তির সময় মাঝারি থেকে উচ্চ-ক্ষমতা হিসাবে বিবেচিত, জিপ ডিস্কগুলি মূলত 100 এমবি, তার পরে 250 এমবি, এবং সক্ষমতা সহ চালু হয়েছিল এবং অবশেষে 750 এমবি।


খ. RAM ও ROM এর পার্থক্য লিখ।
উত্তর: RAM ও ROM এর পার্থক্য

RamRom
Ram= Random Access MemoryRom= Read Only Memory ROM
RAM এ ডাটা থাকে অস্থায়ী ভাবেএ ডাটা থাকে স্থায়ী ভাবে
র‌্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমোরি(ইংরেজি: Random access memory), সংক্ষেপে র‌্যাম (RAM) হল এক ধরনের কম্পিউটারের উপাত্ত (ডাটা) সংরক্ষণের মাধ্যম।র‌্যাম থেকে যে কোন ক্রমে উপাত্ত “অ্যাক্সেস” করা যায়, এ কারণেই একে র‌্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমোরি বলা হয়। র‌্যান্ডম শব্দটি দিয়ে এখানে বুঝানো হয়েছে – যে কোনো উপাত্ত (তার অবস্থানের উপরে নির্ভর না করে) ঠিক একই নির্দিষ্ট সময়ে উদ্ধার করা যায়।

RAM ও ROM এর মধ্যে পার্থক্যগুলো হল :

  • Ram এর পূর্ণ রূপ হলো Random Access Memory এবং ROM এর পূর্ণ রূপ হলো Read Only Memory ।
  • Ram কে ভোলাটাইল মেমোরি বলা হয়  আর ROM কে নন-ভোলাটাইল মেমোরি বলা হয় ।
  • RAM হলো প্রাইমারী স্টোরেজ আর ROM হলো সেকেন্ডারি স্টোরেজ ।
  • RAM এর তথ্য(ডাটার সমষ্টি) কম্পিউটার প্রসেসর সরাসরি এক্সেস করতে পারে তবে ROM এর তথ্য(ডাটার সমষ্টি)কম্পিউটার প্রসেসর সরাসরি এক্সেস করতে পারে না । এর জন্য প্রথমে তথ্য(ডাটার সমষ্টি) কে RAM এ পাঠাতে , তারপর এক্সিকিউট হয় ।
  • RAM এ সংরক্ষণকৃত ডাটা Read ও Write উভয়ই করা যায়  তবে ROM এ সংরক্ষণকৃত ডাটা শুধু Read করা যায় ।
  • RAM মেমরি ব্যবহৃত হয় টেম্পোরারি স্টোরেজ হিসেবে কিন্তু  ROM মেমরি ব্যবহৃত হয় পারমানেন্ট স্টোরেজ হিসেবে ।

গ. হার্ড ডিক্স এর বৈশিষ্ট্য লেখ।

উত্তর: একটি হার্ড ড্রাইভের প্রাথমিক বৈশিষ্ট্য হল এর ধারণক্ষমতা ও কার্যকারিতা। ধারণক্ষমতাকে উল্লেখ্য করা হয় ১০০০ ইউনিটের উপসর্গ দিয়ে যেমন ১ টেরাবাইট ড্রাইভের ধারণক্ষমতা হল ১০০০ গিগাবাইট।

এই ধারনক্ষমতার সবটাই ব্যবহারকারীর জন্য পুরোপুরি থাকে না কারণ ফাইল সিস্টেম এবং কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম ও অভ্যন্তরীন বাড়তি জায়গা ব্যবহার করা হয় ভুল সংশোধন ও পুনরুদ্ধার কাজের জন্য। কার্যকারিতাকে বোঝানো হয় হার্ড ড্রাইভের একসেস টাইম ও ল্যাটেন্সি বৈশিষ্ট্যের উপর।

একসেস টাইম হল কতটুকু সময়ে একটি হেড কোন নির্দিষ্ট ট্র্যাক বা সিলিন্ডারের যায় এবং ল্যাটেন্সি হল একটি সেক্টর কত দ্রুত হেডের নিচে আসে সেই সময়ের সমষ্টি। ল্যাটেন্সির ব্যাপারটি হার্ড ড্রাইভের রোটেশনাল স্পিড যা রিভোলুশন পার মিনিট দিয়ে মাপা হয় তার সাথে সম্পর্কিত।

এছাড়াও হার্ড ড্রাইভে কত গতিতে ডাটা স্থানান্তর (ডাটা রেট) হয় সেটিও অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য বলে বিবেচিত হয়।

H.S.C

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *