ssc /এসএসসি জীব বিজ্ঞান সংক্ষিপ্ত সাজেশন ২০২১, ফাইনাল সাজেশন এসএসসি জীব বিজ্ঞান ২০২১, ssc biology suggestion 100% common guaranty, special short suggestion ssc suggestion biology 2021

ssc /এসএসসি জীব বিজ্ঞান সংক্ষিপ্ত সাজেশন ২০২১, ফাইনাল সাজেশন এসএসসি জীব বিজ্ঞান ২০২১, ssc biology suggestion 100% common guaranty, special short suggestion ssc suggestion biology 2021

এসএসসি পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা সাজেশন
শেয়ার করুন:

বিষয়: ফাইনাল সাজেশন এসএসসি জীব বিজ্ঞান ২০২১

[ বি:দ্র:এই সাজেশন যে কোন সময় পরিবতনশীল ১০০% কমন পেতে পরিক্ষার আগের রাতে সাইডে চেক করুন এই লিংক সব সময় আপডেট করা হয় ]

খেলার মাধ্যমে শ্বসনের ধাপসমূহ চিহ্নিতকরণ এবং শক্তির উৎপাদন ও ব্যবহার বিশ্লেষণ।

বিষয়বস্তু

  • কোষে প্রধান শক্তির উৎস হিসেবে এটিপির (ATP) ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারব;
  • শ্বসন ব্যাখ্যা করতে পারব;
  • সবাত ও অবাত শ্বসনের ধারণা ও ব্যাখ্যা করতে পারব;

১. প্রথমে জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের ৬৬-৬৭, ৭৬-৮১ পৃষ্ঠা পাঠ করতে হবে।

খেলার উপকরণ:

২. নিচের তালিকাটি লক্ষ্য করতে হবে (এই তালিকা অ্যাসাইনমেন্টে ওঠানাের প্রয়ােজন নেই):

৩. এই তালিকার মতাে করে ১৫ টি কার্ড বানাতে হবে। কার্ডের একপাশে থাকবে; উপাদানের নাম এবং ক্রমিক নং অপর পাশ ফাঁকা থাকবে; কার্ডগুলাের একপাশ থেকে যেন অন্যপাশের লেখা পড়া না যায়; কার্ডগুলাে উল্টে রাখলে যেন একটা অন্যটার থেকে পৃথক করা না যায়;

৪. একটি এ-ফোর বা অনুরূপ আকারের সাদা পৃষ্ঠায় অ্যাসাইনমেন্টের ছক বানাতে হবে, পরের পৃষ্ঠায় উল্লিখিত উদাহরণ অনুসারে; শুরুতে সেখানে কোনাে ATP সংখ্যা বা X, Y, Z এর অবস্থান সংখ্যা থাকবে না। খেলার বাের্ডে শূন্য থেকে পনের পর্যন্ত সংখ্যাগুলাে থাকবে, তবে X, Y, Z লেখা থাকবে না;

৫. একটি খুঁটির প্রয়ােজন হবে যেটি একটি অ্যামিবা নির্দেশ করবে; খেলার বাের্ডের ঘরগুলােতে রাখা যাবে এমন যেকোনাে জিনিস (যেমন: একটি বােতাম, ইট বা পাথরের টুকরা, পয়সা/কয়েন ইত্যাদি) ঘুটি হিসেবে ব্যবহারযােগ্য;

খেলার নিয়ম:

৬. উল্লিখিত ১৫ টি কার্ড থেকে লটারি করে ৩ টি কার্ড একবারে বেছে নিতে হবে; সেই কার্ড তিনটিতে লেখা উপাদান তিনটির সমতুল্য ATP এর সংখ্যা হবে যথাক্রমে A, B, C এর মান (ক্রমিক নং এর উর্ধ্বক্রম অনুসারে); এই তিনটির ATP মানের যােগফল হলাে E, যতটা শক্তি নিয়ে অ্যামিবা খেলা শুরু করবে;

৭. কার্ড তিনটির ক্রমিক নং এর মধ্যে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন নম্বর (ATP মান নয়) লক্ষ্য করতে হবে; খেলার বাের্ডে সেই দুটি নম্বর বিশিষ্ট ঘরে যথাক্রমে X ও Z লিখতে হবে;অপর কার্ডটিতে যে ক্রমিক নম্বর আছে, খেলার বাের্ডে সেই একই নম্বর বিশিষ্ট ঘরে Y লিখতে হবে; এখানে X ও Z হলাে অ্যামিবার দুটি খাদ্য যাদের খাদ্যমান যথাক্রমে A ও D, যেখানে D হলাে B ও C এর ATP মানের যােগফল; আর Y হলাে বিরূপ পরিবেশ, অ্যামিবা যেখানে গেলে একবারে E পরিমাণ শক্তি খরচ হয়ে যায়;

৮.খেলার বাের্ডের শূন্য ঘরে অ্যামিবা ঘুটি রাখতে হবে। সেখান থেকে শিক্ষার্থীর পছন্দ অনুসারে প্রতি চাল বা ধাপে পাশাপাশি কিংবা লম্বালম্বি এক ঘর যেতে পারবে, তবে কোনাকুনি যাবে না; যে ঘরে একবার বসেছে, পরের কোনাে দানে সেই ঘরে ফেরা যাবে না;

৯. প্রতি চালে অ্যামিবা যখন এক ঘর যায় তখন তার কতটুকু ATP খরচ হবে সেটা | A, B, C এর যেকোনাে একটির মানের সমান; খাদ্যগ্রহণের সময়েও শক্তি থরচ হয়। সেটি হবে A, B, C এর মধ্যে অপর যেকোনাে একটির মানের সমান;

১০. খুঁটির চাল শুরু করার আগেই শিক্ষার্থীকে A থেকে F এর মানসমূহ, X, Y, Z এর অবস্থান, এবং খরচের মানদুটি নির্ধারণ করে অ্যাসাইনমেন্টের ছকের নির্ধারিত খেলার সেটআপ’ ঘরে লিখে ফেলতে হবে। খেলা চলাকালে এই মানসমূহ পরিবর্তন করা যাবে না;

১১.বর্তমান ধাপের নিট ATP = আগের ধাপের নিট ATP + বর্তমান ধাপে | অর্জিত ATP – বর্তমান ধাপে খরচ হওয়া ATP;

১২. তিনভাবে খেলাটি শেষ হতে পারে: (১) অ্যামিবার শক্তি শূন্য হওয়ার

আগে শেষ (১৫ নং) ঘরে পৌঁছালে। (২) শেষ ঘরে না পৌঁছেও F পরিমাণ নিট ATP পেলে, যেখানে F হলাে A, B, C এর মধ্যে সর্বোচ্চ ATP মানের সাথে E যােগ করলে যত হয় তত। তখন অ্যামিবা দ্বিবিভাজনের মাধ্যমে বংশবৃদ্ধি করতে পারে; (৩) বিরূপ পরিবেশ Y ঘরে পৌঁছে অ্যামিবার নিট ATP ঠিক শূন্য হলে, শূন্যের বেশিও নয় কমও নয়। তখন অ্যামিবা সিস্টে (নিষ্ক্রিয় দশা) পরিণত হয়ে উপযুক্ত পরিবেশের জন্য অপেক্ষা করতে থাকে;

১৩. প্রদত্ত উদাহরণে শুরু থেকে ৬ নং পর্যন্ত সাতটি ধাপে খেলা শেষ হয়েছে; প্রকৃতপক্ষে এর চেয়ে কম বা বেশি ধাপে খেলা শেষ হতে পারে; নিচের উদাহরণের প্রতিটি ধাপ ভালাে করে দেখে ও বুঝে নিয়ে তারপর খেলা শুরু করতে হবে;

উত্তর : লিংক

নির্দেশনাঃ

১. প্রথমে জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের ৭১-৭২, ৭৪-৭৫ পৃষ্ঠা পাঠ করতে হবে।

২. পরীক্ষাগুলাে করার জন্য প্রথমে উপকরণগুলাে সংগ্রহ করে নিতে হবে: স্বচ্ছ কাচের গ্লাস বা অন্য কোনাে স্বচ্ছ পাত্র), ঘড়ি (স্টপওয়াচ হলে ভালাে, না হলে সাধারণ ঘড়িতেও চলবে), ভিনেগার না থাকলে কাগজি লেবুর রস), যেকোনাে ধরনের ডিটারজেন্ট না থাকলে কাপড় কাচার সাবান), পরিষ্কার পানি এবং জলজ কোনাে উদ্ভিদ (যেমন: কলমি শাক। হেলেঞ্চা শাক। কচুরিপানা/ হাইড্রিলা ইত্যাদি)।

.

৪. রৌদ্রোজ্জ্বল একটি দিন বেছে নিয়ে পরীক্ষাগুলাে করতে হবে। প্রতিটি পরীক্ষণের জন্য একই পরিমাণ পানি ব্যবহার করতে হবে যাতে উদ্ভিদের অংশটি পুরােপুরি ডুবে থাকে। প্রতিটি পরীক্ষণে একই উদ্ভিদ ব্যবহার করতে হবে। তবে প্রতিবার পানি পরিবর্তন করে নিতে হবে এবং সবকিছু ভালাে করে পরিষ্কার পানিতে ধুয়ে নিতে হবে।

৫. ছয়টি পরীক্ষণের প্রতিটির ক্ষেত্রে সবকিছু সাজানাের এক ঘন্টা পর থেকে এক মিনিট করে মােট তিনবার বুদবুদের সংখ্যার পাঠ নিতে হবে এবং সেই তিনটি মানের গড় হবে সেই পরীক্ষণের প্রতি মিনিটে বুদবুদের সংখ্যা। ছক-১ এর নির্ধারিত ঘরে সেই মানটি লিখতে হবে।

৬. ছক-১ এ বুদবুদের সংখ্যার পার্থক্য হওয়া বা না হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে লেখার সময় জোড়ায় জোড়ায় পাঠের তুলনা করতে হবে: ক-১ বনাম ক-২, খ-১ বনাম খ-২, এবং গ-১ বনাম গ-২। প্রতিটি ব্যাখ্যা ২০-৩০ শব্দের মধ্যে হতে হবে।

৭. ছক-২ এর নির্ধারিত ঘরে প্রভাবকসমূহের প্রকৃত নাম (পাঠ্যপুস্তক অনুযায়ী) লিখতে হবে। সেই সাথে উল্লিখিত প্রভাবকের ফলে কখন সালােকসংশ্লেষণের হার বাড়ে বা কমে সেটিও উল্লেখ করতে হবে।

৮. বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে করে পরীক্ষণগুলাে সকাল থেকে শুরু করে ছকে উল্লিখিত ক্রমানুসারে করা হয়।

উত্তর : লিংক

প্রাণি টিস্যু ব্যাখ্যা করতে পারব। একই রকম কোষ সমষ্টির ও একই কাজ সম্পন্ন করার ভিত্তিতে টিস্যুর কাজ মূল্যায়ন করতে পারব। টিস্যু, অঙ্গ এবং তন্ত্রে কোষের সংগঠন ব্যাখ্যা করতে পারব। টিস্যুতন্ত্রের কাজ ব্যাখ্যা করতে পারব।

নির্দেশনা (সংকেত/ধাপ/পরিধি):

১. প্রথমে জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের ৩৩-৪২ নং পৃষ্ঠা পাঠ করতে হবে।

২. এবার নিচের বৈশিষ্ট্যের তালিকাটি লক্ষ্য করতে হবে (অ্যাসাইনমেন্টের মধ্যে এই তালিকা ওঠানাের প্রয়ােজন নেই)।

৩. একটি ছক্কা নিতে হবে যেখানে এক থেকে ছয় পর্যন্ত যেকোনাে পূর্ণসংখ্যা পড়তে পারে। যদি ছক্কা না পাওয়া যায় তাহলে ১ থেকে ৬ পর্যন্ত সংখ্যা লেখা ছয়টি কার্ড বানিয়ে নিতে পারবে যে কার্ডগুলাে দিয়ে ছক্কার মতাে লটারি করা যাবে।

৪. ছক্কাটি পরপর তিনবার ছুঁড়ে যে তিনটি দান উঠবে সেই তিনটি সংখ্যা খেলার একটি রাউন্ড হিসেবে গণ্য হবে। উদাহরণ: ধরা যাক, যথাক্রমে ৩, ৬ এবং ৪ পড়ল তাহলে সেই রাউন্ডে উপরের বৈশিষ্ট্যের তালিকা থেকে বৈশিষ্ট্য-১ হিসেবে ৩ নং বৈশিষ্ট্য (একস্তরী) বেছে নিতে হবে;
বৈশিষ্ট্য-2 হিসেবে ৩ + ৬ = ৯ নং বৈশিষ্ট্য (স্তম্ভের মতাে) বেছে নিতে হবে; এবং বৈশিষ্ট্য-৩ হিসেবে ৯ + ৪ = ১৩ নং বৈশিষ্ট্য (সিলিয়াযুক্ত) বেছে নিতে হবে। ছকে নির্ধারিত ঘরে এগুলাে লিখতে হবে এবং ‘বলােতাে আমি কে?’ এর ঘরে ঐ তিনটি বৈশিষ্ট্য ধারণ করে এমন প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষের নাম লিখতে হবে।

এই ঘর পূরণ করার জন্য অবশ্যই পাঠ্যপুস্তকে নির্ধারিত পৃষ্ঠাসমূহের (৩৩-৪২) মধ্যে থেকে মােটা হরফে ছাপা নামসমূহ বেছে নিতে হবে।

৫. যদি সেই তিনটি বৈশিষ্ট্য মিলিয়ে কোনাে প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষ না পাওয়া যায় তাহলে আবার হুঁক্কা ছুড়তে হবে এবং বৈশিষ্ট্য রাফ কাগজে নােট করতে হবে যতক্ষণ পর্যন্ত না এমন তিনটি বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায় যেগুলাে দিয়ে একটি সত্যিকারের প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষ বােঝায়।

যেমন: ৯ নং বৈশিষ্ট্যের পরও না মিললে আবার ছক্কা থেকে। ১ পড়ল, তখন দেখতে হবে ১০ নং বৈশিষ্ট্যের সাথে আগের তিনটির মধ্যে কোন দুটি মিলিয়ে গ্রহণযােগ্য কোনাে প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষ পাওয়া যায় কিনা। পাওয়া গেলে তখন সেই তিনটি বৈশিষ্ট্য মিলিয়ে একটি রাউন্ড হবে।

খেলার মাধ্যমে প্রাণিকোষ এবং প্রাণিটিস্যুর গঠন ও কাজ বিশ্লেষণ

৬. এভাবে যদি ১৮ নং পার হয়ে যায় তাহলে আবার ১ নং থেকে বৈশিষ্ট্যের নং গণনা শুরু হবে। যেমন: ১৬ নং এর পরে ছক্কায় ৫ পড়লে ১৬ + ৫ = ২১ হয়। কিন্তু বৈশিষ্ট্য আছে ১৮ নং পর্যন্ত, তাই ২১ বলতে ১৮ এর পর তিন ঘর অর্থাৎ ৩ নং বৈশিষ্ট্য বােঝাবে।

৭. এমন দশটি রাউন্ড খেলতে হবে যেগুলােতে অবশ্যই কোনাে না কোনাে প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষের বৈশিষ্ট্য মেলে এবং সেগুলাে উল্লিখিত ছকে লিখতে হবে।

৮. তিনটি বৈশিষ্ট্য মিলে যায় এমন একাধিক প্রাণিটিস্যু বা প্রাণিকোষ পাওয়া গেলে সেগুলাের মধ্যে যেকোনাে একটির নাম সেই রাউন্ডের ‘বলােতাে আমি কে?’ ঘরে লেখাই যথেষ্ট।

৯. তিনটি বৈশিষ্ট্যের হুবহু মিলে যাওয়া রাউন্ড একাধিকবার লেখা যাবে একই রাউন্ডে একই বৈশিষ্ট্য একাধিকবার গণ্য করা যাবে না। সেক্ষেত্রে পুনরায় ছক্কা ছুড়ে অন্য বৈশিষ্ট্য বেছে নিতে হবে। তবে ভিন্ন রাউন্ডে একই বৈশিষ্ট্য থাকা সম্ভব।

১০. সবশেষে পূরণকৃত ছকটি অ্যাসাইনমেন্ট হিসেবে জমা দিতে হবে।

উত্তর : লিংক

খালি চোখে লক্ষ্যণীয় উদ্ভিদ কোষের বৈশিষ্ট্য এবং টিস্যুর শ্রমবন্টন নির্ণয়।

১. উদ্ভিদ কোষের প্রধান অঙ্গাণুর কাজ ব্যাখ্যা করতে পারব।
২. জীবদেহে কোষের উপযােগিতা মূল্যায়ন করতে পারব।
৩. উদ্ভিদ টিস্যু ব্যাখ্যা করতে পারব।
৪. একই রকম কোষ সমষ্টির ও একই কাজ সম্পন্ন করার ভিত্তিতে টিস্যুর কাজ মূল্যায়ন করতে পারব।

নির্দেশনা (সংকেত/ধাপ পরিধি):

ধাপ – ১ পাঠ্যপুস্তকের ২০-২১ পৃষ্ঠা, ২৩-২৪ পৃষ্ঠা এবং ২৮-৩৩ পৃষ্ঠা দ্রষ্টব্য।

ধাপ – ২ খাতায় নিচের মতাে দুটি ছক করতে হবে:

ধাপ-৩: পর্যবেক্ষণের ছকটি আগে পূরণ করতে হবে। হাত, ছুরি, বটি ইত্যাদি ব্যবহার করে উল্লিখিত ফল ও সজির খােসা ছাড়িয়ে অথবা কেটে খাওয়ার সময় প্রতিটি অংশের দৃঢ়তা লক্ষ্য করে সেই অনুসারে সেসব ঘরে টিক চিহ্ন দিতে হবে। আর যেসব ঘরে কোনাে বৈশিষ্ট্য প্রযােজ্য নয় সেগুলােতে ক্রস চিহ্ন দিতে হবে। তবে রং-এর ঘরে রঙের নাম লিখতে হবে।
ধাপ-৪: পর্যবেক্ষণের ছকে যা কিছু উল্লেখ করা হয়েছে, কারণ নির্ণয়ের ছকে সেগুলোর সমতুল্য ঘরগুলােতে সেই বৈশিষ্ট্যগুলাের কারণ লিখতে হবে।


রঙের বিভিন্নতার কারণগুলাে প্রতিটি ঘরে একটি করে মােট সাতটি হবে। দৃঢ়তার বিভিন্ন মাত্রার ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণের ছকে প্রতি সারিতে শুধু যে ঘরে টিক চিহ্ন দেওয়া হয়েছিল, সেই ঘরের সাপেক্ষে কারণ উল্লেখ করতে হবে। ক্রস-চিহ্নিত ঘরসমূহের কারণ উল্লেখ করার প্রয়োজন নেই। তাই দৃঢ়তার মাত্রার বিভিন্নতার কারণও মােট সাতটি হবে। কারণ নির্ণয়ের ছকে বাকি ঘরগুলাে ফাঁকা থাকবে।

সাবধানতা: ধারালাে যন্ত্র ব্যবহারের সময় যেন হাত না কেটে যায়, সে ব্যাপারে সাবধান থাকতে হবে। অবশ্যই পরিবারের বয়ােজ্যেষ্ঠ কারাে। তত্ত্বাবধানে কাজটি করতে হবে।

সাজেশন সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

উত্তর : লিংক

হাতেকলমে একটি ফুলের বিভিন্ন স্তবক চিহ্নিতকরণ এবং পরাগায়ন মাধ্যমের সাথে তার সম্পর্ক বিশ্লেষণ।

নির্দেশনাঃ

  • জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের ২৩৩-২৩৯ পৃষ্ঠা পাঠ করতে হবে।
  • আশেপাশে সহজলভ্য এমন কোনাে এক প্রজাতির ফুলের এক বা একাধিক নমুনা সংগ্রহ করতে হবে।
  • ফুলটি ব্যবচ্ছেদ করতে হবে। এজন্য ব্লেড বা কাঁচির প্রয়ােজন হবে। দৈর্ঘ্য পরিমাপের জন্য স্কেল বা রুলার প্রয়ােজন হবে। সতর্কতা: ধারালাে যন্ত্র নিয়ে কাজ করার সময় খুব সাবধান। থাকতে হবে যাতে নিজের ক্ষতি না হয়। পরিবারের বয়ােজ্যেষ্ঠ কারাে তত্ত্বাবধানে কাজটি করতে হবে।
  • জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের ২৩৫ পৃষ্ঠার চিত্রের মতাে করে শিক্ষার্থী তার সংগৃহীত ফুলের একটি চিত্র অঙ্কন করবে। সেখানে সবগুলাে স্তবক লেবেল করতে হবে। পাশাপাশি একটি স্কেল বা দৈর্ঘ্য মাপক আঁকতে হবে যেটির সাপেক্ষে আঁকা ফুলের বিভিন্ন অংশের প্রকৃত মাপ কত সেটি নির্ণয় করা সম্ভব। (উদাহরণ হিসেবে পরবর্তী পৃষ্ঠায় অ্যাসাইনমেন্টের ছক দ্রষ্টব্য)
  • অ্যাসাইনমেন্টের ছক অনুসারে ফুলের ৬ টি বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করতে হবে।
  • ফুলের উল্লিখিত বৈশিষ্ট্যাবলীর ভিত্তিতে সেটির পরাগায়ন কীভাবে হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি, তা অ্যাসাইনমেন্টের ছকের নির্ধারিত ঘরে উল্লেখ করতে হবে।
  • পরাগায়নের মাধ্যম হিসেবে যেটি উল্লেখ করা হবে সেটির যৌক্তিকতা ব্যাখ্যা করতে হবে। শব্দসীমা ৭০-১০০।

উত্তর : লিংক

পরিবারের একজন সদস্যের পালস রেট অবস্থায় পরিমাপ করে পাঠসমূহের ব্যাখ্যা প্রদান।

নির্দেশনা ও সংকেতঃ

১. পালস রেট বা নাড়িস্পন্দন পরিমাপের পদ্ধতি যথাযথভাবে অনুসরণ কর (জীববিজ্ঞান পাঠ্যপুস্তকের পৃষ্ঠা ১৫০-১৫১ দ্রষ্টব্য)।

২. প্রথমে খাতায় নিচের মতাে ছক আঁকতে হবে :

অবস্থা/ধাপপালস রেট (প্রতি মিনিটে)
১) শােয়া অবস্থায়
২) বসা অবস্থায়
৩) দাঁড়ানাে অবস্থায়
৪) পাঁচ মিনিট
৫) দ্রুতবেগে হাঁটার পরে

৩. পরিবারের একজন সুস্থ্য সদস্যকে তােমার পরীক্ষণে অংশ নিতে অনুরােধ করবে। তােমার নির্দেশনা বুঝতে সক্ষম এমন ব্যক্তি হতে হবে। তাঁকে পুরাে বিষয়টি বুঝিয়ে বলার পর তিনি সম্মতি দিলে পরীক্ষণ শুরু করা যাবে।

৪. সাবধানতা: অনুমতি ছাড়া কারাে উপর পরীক্ষণ করা যাবে না। নিজের উপর পরীক্ষণ করা যাবে না।

৫. পরীক্ষণাধীন ব্যক্তিকে পরীক্ষণের পূর্বে ৬ ঘন্টা চা-কফি বা ধূমপান থেকে বিরত থাকতে হবে। তাঁকে পরীক্ষণের সময় শান্ত ও শিথিল (relaxed) থাকতে হবে। তাই সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরপর পরীক্ষণটি করার আদর্শ সময়।

৬. উপরের ছক অনুসারে প্রথমে শােয়া অবস্থায় পালস রেট নির্ণয় করে ছকে পাঠ লিখতে হবে। তারপর যথাক্রমে বসা ও দাঁড়ানাে অবস্থায় পাঠ নিতে হবে এবং ছকে লিখতে হবে।

৭. সবশেষে পাঁচ মিনিট দ্রুতবেগে হীটার পরে দাঁড়ানাে অবস্থায় পালস রেট নির্ণয় করে ছকে পাঠ লিখতে হবে। উল্লিখিত ছক ব্যবহার করে লেখচিত্র আঁকতে হবে। উদাহরণ: শােয়া, বসা, দাঁড়ানাে এবং হাঁটার পরে প্রতি মিনিটে পালস রেট যদি যথাক্রমে ৭০, ৭৫, ৮৫ এবং ১০০ হয় তাহলে তার লেখচিত্রটি উপরে প্রশ্নে দেওয়া আছে;

৮. বিভিন্ন অবস্থায় পালস রেটের পার্থক্য কেন হয় তা ব্যাখ্যা করতে হবে। | [সর্বনিম্ন ৩০ থেকে সর্বোচ্চ ৫০ শব্দে]

উত্তর : লিংক

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

SSC Biology MCQ Question Model Test -1

SSC Biology MCQ Question Model Test -2

SSC Biology MCQ Question Model Test -3

SSC Biology MCQ Question Model Test -4

SSC Biology MCQ Question Model Test -5

SSC New Syllabus Biology Suggestion 2021

[ বি:দ্র:এই সাজেশন যে কোন সময় পরিবতনশীল ১০০% কমন পেতে পরিক্ষার আগের রাতে সাইডে চেক করুন এই লিংক সব সময় আপডেট করা হয় ]

জীবন পাঠ

১।        শারীরবিদ্যার আলোচ্য বিষয় কোনটি?

            ক) জীবের বিবর্তন        খ) সালোকসংশ্লেষণ

            গ) ভ্রুণের বিকাশ           ঘ) টিস্যুর বিন্যাস

২।         হিস্টোলজিতে আলোচনা করা হয় কোনটি?

            ক) জননকোষের উৎপত্তি            খ) জীবদেহের টিস্যুসমূহের গঠন

            গ) জীবদেহের কোষের গঠন      ঘ) জীবের শারীরবৃত্তীয় কাজ

৩।        জীবদেহে হরমোন নিয়ে আলোচনা করা হয় কোন শাখায়?

            ক) হিস্টোলজি       খ) সাইটোলজি

            গ) ইকোলজি                ঘ) এন্ডোক্রাইনোলজি

 ৪।        জননকোষের উৎপত্তি নিয়ে আলোচনা করা হয় কোন শাখায়?

            ক) শারীরবিদ্যা     খ) ভ্রুণবিদ্যা   গ) বংশগতিবিদ্যা          ঘ) অঙ্গসংস্থানবিদ্যা

৫।        কোনটি মনেরা রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত?

            ক) পেনিসিলিয়াম         খ) প্যারামেসিয়াম     গ) নস্টক          ঘ) অ্যামিবা

৬।        ডায়াবেটিস চিকিৎসার উপাদান তৈরিতে কোন রাজ্যের জীব ব্যবহার করা হয়?

            ক) মনেরা         খ) প্রোটিস্টা              গ) ফানজাই      ঘ) প্ল্যান্টি

৭।        নিচের কোন জীবটিতে ক্রোমাটিন বস্তু সাইটোপ্লাজমে ছড়ানো থাকে?

            ক) পেনিসিলিয়াম         খ) অ্যামিবা   গ) প্যারামেসিয়াম        ঘ) নীলাভ সবুজ শৈবাল

৮।       নীলাভ সবুজ শৈবালের কোষে

            i. সুগঠিত নিউক্লিয়াস অনুপস্থিত

            ii. মাইটোকন্ড্রিয়া থাকে না

            iii. উঘঅ অথবা জঘঅ থাকে

            নিচের কোনটি সঠিক

            ক) i ও ii           খ) i ও iii   গ) ii ও iii         ঘ) i, ii ও iii

৯।        কোন অঙ্গাণুটি ব্যাকটেরিয়ায় উপস্থিত থাকে?

            ক) মাইটোকন্ড্রিয়া         খ) প্লাস্টিড

            গ) এন্ডোপ্লাজমিক রেটিকুলাম    ঘ) রাইবোজোম

১০।      চিত্র-A-এর জীবটি কোন রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত?

            ক) মনেরা         খ) প্রোটিস্টা

            গ) ফানজাই                  ঘ) অ্যানিমেলিয়া

১১।      ফানজাই রাজ্যের জীব কোনটি?

            ক) মাশরুম       খ) অ্যামিবা  গ) প্যারামেসিয়াম        ঘ) নীলাভ সবুজ শৈবাল

            নিচের চিত্রটি লক্ষ করো এবং ১২ ও ১৩ নং প্রশ্নের উত্তর দাও

১২।      উদ্দীপকের জীবটি কোন রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত?

            ক) Protista  খ) Fungi  গ) মনেরা           ঘ) প্ল্যান্টি

১৩।      উক্ত রাজ্যের বৈশিষ্ট্য হলো

            i. হ্যাপ্লয়েড স্পোর দিয়ে বংশবৃদ্ধি ঘটে

            ii. উন্নত টিস্যুতন্ত্র বিদ্যমান

            iii. কোষপ্রাচীর কাইটিন বস্তু দিয়ে গঠিত

            নিচের কোনটি সঠিক?

            ক) i ও ii           খ) ii ও iii  গ) i ও iii      ঘ) i, ii ও iii

১৪।      কিংডম ফানজাইয়ের জন্য প্রযোজ্য?

            i. মৃতজীবী

            ii. নিউক্লিয়ার মেমব্রেন অনুপস্থিত

            iii. ক্লোরোপ্লাস্ট অনুপস্থিত

            নিচের কোনটি সঠিক?

            ক) i ও ii           খ) ii ও iii  গ) i ও iii      ঘ) i, ii ও iii

১৫।      অ্যানিমেলিয়া রাজ্যের বৈশিষ্ট্য কোনটি?

            ক) যৌন ও অযৌন জননের মাধ্যমে বংশবৃদ্ধি ঘটে   খ) এরা আর্কিগোনিয়েট

            গ) ভ্রুণীয় স্তর সৃষ্টি হয়    ঘ) দেহে সরল টিস্যুতন্ত্র বিদ্যমান

১৫।      কোন রাজ্যের সদস্যরা হেটেরোট্রফিক?

            ক) মনেরা         খ) ফানজাই  গ) প্রোটিস্টা  ঘ) অ্যানিমেলিয়া

১৭।      কেভলিয়ার স্মিথ জীবজগেক মোট কয়টি রাজ্যে ভাগ্য করেছেন?

            ক) ৬    খ) ৫  গ) ৪     ঘ) ৩

১৮।     দ্বিপদ নামকরণের সর্বশেষ ধাপ কোনটি?

            ক) গোত্র            খ) প্রজাতি গ) জগৎ       ঘ) বর্গ

১৯।      উদ্ভিদের ক্ষেত্রে দ্বিপদ নামকরণ পদ্ধতি কোনটি?

            ক) ICZN         খ) IMVN  গ) IMCB     ঘ) ICBN

২০।      Systema Nature গ্রন্থটির রচয়িতা কে?

            ক) অ্যারিস্টটল             খ) মারগুলিস

            গ) থিওফ্রাসটাস            ঘ) ক্যারোলাস লিনিয়াস

২১।      ঢাকায় আবিষ্কৃত ব্যাঙটির বৈজ্ঞানিক নাম কী?

            ক) Gakerana dhaka     খ) Jekerena dhaka

            গ) Zakerana dhaka      ঘ) Zekirana dhaka

২২।       Nymphaca nouchali কোনটির বৈজ্ঞানিক নাম?

            ক) শাপলা         খ) কাঁঠাল গ) জবা        ঘ) আম

২৩।      পেঁয়াজের বৈজ্ঞানিক নামের গণ অংশ কোনটি?

            ক) Apis     খ) Solanum গ) Allium   ঘ) Oryza

২৪।      Corchorus capsularis  কোনটির বৈজ্ঞানিক নাম?

            ক) পাট             খ) ধান

            গ) কাঁঠাল         ঘ) শাপলা

২৫।      ধানের বৈজ্ঞানিক নাম কী?

            ক) Mangifera indica        খ) Oryza sativa

            গ) Artocarpus heterophyllus    (ঘ) Homo sapiens

বহু নির্বাচনী প্রশ্নের উত্তর  –  ১. খ ২. খ ৩. ঘ ৪. খ ৫. গ ৬. ক ৭. ঘ ৮. ঘ ৯. ঘ ১০. খ ১১. ক ১২. খ ১৩. গ ১৪. গ ১৫. গ ১৬. ঘ ১৭. ক ১৮. খ ১৯. ঘ ২০. ঘ ২১. গ ২২. ক ২৩. গ ২৪. ক ২৫. খ।

সবার আগে সাজেশন আপডেট পেতে Follower ক্লিক করুন

এস এস সি জীববিজ্ঞান সাজেশন ২০২১ (সংক্ষিপ্ত সিলেবাস অনুযায়ী)

অধ্যায় – ২ : জীব কোষ ও টিস্যু

Important topics

১. উদ্ভিদ ও প্রাণি কোষের মধ্যে পার্থক্য
২. মাইটোকন্ড্রিয়া এর গঠন ও কাজ
৩. ক্লোরোপ্লাস্ট এর গঠন ও কাজ
৪. নিউক্লিয়াস এর গঠন ও কাজ
৫. ঐচ্ছিক , অনৈচ্ছিক ও হৃদপেশী
৬. জাইলেম , ফ্লোয়েম ও নিউরন গঠন

অধ্যায় – ৪ : জীবনী শক্তি –
Important topics

১. ক্রেবস চক্র , গ্লাইকোলাইসিস , হ্যাচ ও স্নেকের প্রক্রিয়া ,
২. সালোকসংশ্লেষণ এর পর্যায়
৩. সালোকসংশ্লেষণে জীবের নির্ভরশীলতা
৪. ফটোলাইসিস

অধ্যায় – ১১ : জীবের প্রজনন
Important topics

১. নিষেক প্রক্রিয়া
২. পুং ও স্ত্রী গ্যামিটোফাইটের উৎপত্তি
৩. পরাগায়ন ও এর মাধ্যম
৪. এইডস : কারণ ও প্রতিকার
৫. স্ব – পরাগায়ন ও পরপরাগায়নের মধ্যে পার্থক্য

অধ্যায়- ১২ : জীবের বংশগতি ও বিবর্তন
Important topics

১. DNA অনুলিপন
২. বিবর্তন প্রাকৃতিক মতবাদ
৩. জেনেটিক ডিসওর্ডার , কারণ ও ফলাফল
৪. লিঙ্গ নির্ধারণ

সাজেশন সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *