hsc ভোকেশনাল ১২শ শ্রেণির কম্পিউটার অপারেশন এন্ড মেইনটেন্যান্স (১) ২য় পত্র ৪র্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান ২০২১, ই-কমার্স ও ই-বিজনেস এর ব্যবহার নিরূপণ

hsc ভোকেশনাল ১২শ শ্রেণির কম্পিউটার অপারেশন এন্ড মেইনটেন্যান্স (১) ২য় পত্র ৪র্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান ২০২১, ই-কমার্স ও ই-বিজনেস এর ব্যবহার নিরূপণ

Assignment এইচ এস সি পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা
শেয়ার করুন:

অ্যাসাইনমেন্ট :  ই-কমার্স ও ই-বিজনেস এর ব্যবহার নিরূপণ। 

শিখনফল/বিষয়বস্তু :

  • ই-কমার্স এবং এর বৈশিষ্ট্য 
  • অনলাইন শপিং, অনলাইন মার্কেটিং-এ ই-কমার্সের সুবিধা 
  • ই-কমার্স ও ই-বিজনেসের মধ্যে পার্থক্য

নির্দেশনা (সংকেত/ ধাপ/ পরিধি): 

  • ই-কমার্সের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করতে হবে
  • অনলাইন শপিং, অনলাইন মার্কেটিং এ ই-কমার্সের সুবিধা বর্ণনা করতে হবে 
  •  ই-কমার্স ও ই-বিজনেসের মধ্যে পার্থক্য বর্ণ না করতে হবে

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে যে কোন প্রশ্ন আপনার মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

  • ই-কমার্সের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করতে হবে

ই-কমার্সের বৈশিষ্ট্য (Features of e-commerce):

  1. সর্বব্যাপিতা (Ubiquity);
  2. সব জায়গায় প্রবেশযোগ্য (Global Reach);
  3. আন্তর্জাতিক মান (Universal Standards);
  4. প্রাচুর্যতা (Richness);
  5. মিথস্ক্রিয়া (Interaction);
  6. তথ্যের ঘনত্ব (Information Density);
  7. ব্যক্তিগতভাবে যত্নশীলতা (Personalization)

সর্বব্যাপিতা(Ubiquity) : গতানুগতিক ব্যবসায় মার্কেট হলো একটি নির্দিষ্ট জায়গা যেখানে পন্য কেনা-বেচা করা হয়। কিন্তু ই-কমার্সে(e-commerce) নির্দিষ্ট জায়গার প্রয়োজন নেই, এটি হলো সর্বব্যাপী এটি সবসময় সবজায়গায় সহজলভ্য। মোবাইলে বা ল্যাপটপে বা অন্য কোন ডিভাইসে ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে যেকোনো জায়গায় বসে দ্রব্য কেনা বেচা করা যায়। ই-কমার্স(e-commerce) কোনো নির্দিষ্ট সীমারেখা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

সর্ব জায়গায় প্রবেশযোগ্য (Global Reach) : ই-কমার্সে(e-commerce) গাতানুগতিক ব্যবসার মত নির্দিষ্ট কোনো সীমারেখা বা জায়গা নেই। ইন্টারনেট ব্যবহার করে পৃথিবীর যে কেউ এই ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত হতে পারে,পণ্য কেনা বেচা করতে পারে, অর্ডার দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে সমগ্র বিশ্বের যত লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করে তাদের সবাইকে ই-কমার্সের বাজার(market) হিসেবে ধরা যায়।

আন্তর্জাতিক মান (Universal Standards): ই-কমার্স(e-commerce) একটি নির্দিষ্ট টেকনিক্যাল মানদন্ড মেনে চলে, একে আন্তর্জাতিক মানদন্ড বলে । যা সব দেশে সব জাতি দ্বারা স্বীকৃত। পক্ষান্তরে গতানুগতিক কমার্সের মান এলাকা থেকে এলাকা বা দেশে ভেদে পরিবর্তীত হয়।

প্রাচুর্যতা (Richness): ব্যবসার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো পণ্যের বিজ্ঞাপন । ইন্টারনেটের সাহায্যে ওয়েব সাইটের মাধ্যমে কোনো পণ্যের স্থিরচিত্র, অভিজ্ঞ, ভিডিও, এনিমেশনের সাহায্যে বিজ্ঞাপন দেয়া হয়।

মিথস্ক্রিয়া (Interaction): ই-কমার্স(e-commerce) টেকনোলজি হলো মিথস্ক্রিয়া যোহাযোগ। কারণ এটি দ্বিমুখী যোগাযোগ রক্ষা করে। পক্ষান্তরে গতানুগতিক টেকনোলজি ; যেমন- টেলিভিশনের সাহায্যে শুধুমাত্র একমুখি যোগাযোগ সম্ভব। কিন্তু ই-কমার্স (e-commerce) টেনোলজিতে তা সম্ভব।

তথ্যের ঘনত্ব (Information Density): ইন্টারনেট বা ওয়েব ইনফরমেশনের পরিমান ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করে। এসব ইনফরমেশন ক্রেতা, বিক্রেতা বা পরিদর্শক সবার কাছে সহজলভ্য। ই-কমার্স (e-commerce) টেকনোলজি ইনফরমেশন সংগ্রহ, সংরক্ষণ, যোগাযোগ এবং প্রক্রিয়াকরণ মূল্য হ্রাস করে। একই সময়ে এসব ইনফলমেশন আন্তর্জাতিক শীট মূল্যে সঠিক ও সময় উপযোগী হয়ে থাকে। যা ফলে এসব তথ্য হয় অধিক গ্রহণযোগ্য ও অধিক গুনগতমানসম্পন্ন।

ব্যক্তিগতভাবে যত্নশীলতা (Personalization) : ই-কমার্স(e-commerce) টেকনোলজি ব্যক্তি ভেদ করতে পারে। অর্থাৎ কোনো বিক্রেতা ইচ্ছে করলেই তার দ্রব্য বিশেষ কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর জন্য উন্মুক্ত রাখতে পারে। আবার অন্যভাবে, বিক্রেতারা ইচ্ছে করলেই কোনো বিক্রেতাকে এড়াতে পারে। ফলে ইনফরমেশনের বহুল্যতা এবং অপ্রয়োজনীয় ক্রেতা বা বিক্রেতার পরিমান এখানে সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • অনলাইন শপিং, অনলাইন মার্কেটিং এ ই-কমার্সের সুবিধা বর্ণনা করতে হবে 

বাংলাদেশে বেশ কিছু বছর আগে থেকে এই ধরনের অনলাইন শপিং এর দুনিয়ায় প্রবেশ করেছে। 

এক্ষেত্রে এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলেছে, যেখানে এখন দেখা যাচ্ছে যে প্রায় অনেক ইন্টারনেট কে কাজে লাগিয়ে তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো ক্রয় করা যাচ্ছে।

তবে ই কমার্স এর জনপ্রিয়তা বাংলাদেশ কম হওয়ার মূল কারণ হলো বাংলাদেশি অনেকেই মনে করেন এটা হয়তো ভুয়া। 

তারা প্রথমে টাকা দিয়ে দিবেন কিন্তু এরপরে হয়তো তাদের টাকা মেরে খাওয়ার সম্ভাবনা রয়ে যায়। 

তারা আসলে বিশ্বাস করতে পারেন না যে অনলাইন কে কাজে লাগিয়ে তারা ঘরের মধ্যে তাদের প্রয়োজনীয় পণ্য গুলো কে নিয়ে আসতে পারবেন। যা ইন্টারনেটনির্ভর এই বিশ্বে মোটেও কাম্য নয়।

তবে এটা বললেও ভুল হবে যে বাংলাদেশের ই কমার্স এর ব্যবহার খুবই কম।কারন এখানে প্রায় শিক্ষিত জনগোষ্ঠীকে মাধ্যমে তাদের প্রয়োজনীয় পণ্য গুলো তাদের নিজের হাতের নাগালে নিয়ে আসতে পারছে। 

এবং অনেকে আছেন প্রথমে ই কমার্স ব্যবহার করাতে খুব বেশি প্রয়োজন বোধ না করলেও 2-1 বার ই কমার্স  এর মাধ্যমে তাদের কাজে সফল হওয়ার পর তারা এখন এটি ব্যবহার করছে তাদের পণ্য গুলো ক্রয় করার জন্য।

এক্ষেত্রে আপনি চাইলে বাংলাদেশের জনপ্রিয় কয়েকটি ই-কমার্স সাইটের লিংক নিচে থেকে নিয়ে নিতে পারেন।
যেগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো খুব সহজেই ক্রয় করতে পারবেন।

  1. ই-কমার্স(e-commerce) কোনো প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক বাজারে প্রকাশ করতে সাহায্য করে।
  2. দ্রুত ক্রয়/বিক্রয় পদ্ধতি, সহজে পন্য খুজে পাওয়া যায়।
  3.  ব্যবসা পরিচালনায় খরচ কমায়।
  4. ভৌগোলিক সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করে সহজেই ক্রেতার কাছে পৌছা যায়।
  5. আর্থিক লেনদেনের খরচ কম হয়।
  6. ই-কমার্সের তথ্য প্রক্রিয়াকরণের বিভিন্ন খরচাদি; যেমন- তৈরি করা, বিতরণ করা, সংরক্ষণল করা ইত্যাদি কার্যক্রমের খরচ ব্যাপকভাবে কমায়।
  7. ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে সহজে সুসম্পর্ক তৈরি করা যায়।
  8. ই-কমার্স(e-commerce) ব্যবসায়িক ব্যয় সংকোচনের পাশাপাশি ক্রেতার জন্য কেনাকাটার খরচ কমিয়ে দিয়েছে এবং কেনাকাটার গতির সঞ্চার করেছে।
  9. ই-কমার্স(e-commerce) কেনাকাটা এবং ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য ওয়ার্কিং টাইম সেভ করছে।
  10. ই-কমার্স(e-commerce) অতি দ্রুত পন্য ভোক্তার কাছে পৌছোয়।
  11. ই-কমার্স(e-commerce) কাস্টমারকে উন্নত সার্ভিস প্রদানের সুবিধা দেয়।
  12. ই-কমার্সের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানসমূহ পরস্পরের ব্যবসা পরিচালনা পদ্ধতি, সার্ভিস এবং মূল্য সম্বন্ধে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সহজেই জানতে পারে। ফলে ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি পায়।
  13. ই-কমার্স (e-commerce) বাজারে নতুন ধরনের চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করছে; যেমন-মাল্টিমিডিয়া ডেভেলপার, ডেটাবেস ডিজাইনার, প্রোগ্রামার ইত্যাদি বহুবিধ চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করছে।
  14. ই-কমার্স(e-commerce) স্বল্প সময়ে বাজার যাচাইয়ের সুবিধা প্রদান করে এবং তাৎক্ষণিক অর্ডার প্রদানের সুবিধা প্রদান করে

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  •  ই-কমার্স ও ই-বিজনেসের মধ্যে পার্থক্য বর্ণ না করতে হবে

ই-বাণিজ্য ওয়েবে পণ্য কেনা বেচা ছাড়া কিছুই নয়। বিপরীতে, ই-ব্যবসা এটি কিছুটা আলাদা কারণ এটি সীমাবদ্ধ নয়, বাণিজ্যিক লেনদেন নয়, তবে এটি অন্যান্য পরিষেবাও সরবরাহ করে। এটি ব্যবসায়ের দুটি উদীয়মান পদ্ধতি, যা সময়ের সাথে সাথে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে।

দিনগুলি হয়ে গেল, যখন আপনাকে কোনও জিনিস কিনতে বাজারে যেতে হবে। আজকাল আপনাকে কেবল অনলাইনে একটি অর্ডার দিতে হবে, এবং সেই আইটেমটি কয়েক মিনিটের মধ্যে আপনার কাছে আসবে। অনলাইন শপিং জনপ্রিয়তা পাচ্ছে, কেবল তার সরলতা এবং সুবিধার কারণে। ই-কমার্স এবং ই-ব্যবসা হিসাবে কেবল দুটি বৈদ্যুতিন নেটওয়ার্কের কারণে এটি সম্ভব।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

ই-বাণিজ্য তার গ্রাহক, ক্লায়েন্ট বা সরবরাহকারীদের সাথে ফার্মের লেনদেনের সাথে সম্পর্কিত। বিপরীতে, ই-ব্যবসা তথ্য প্রযুক্তি এবং যোগাযোগের সহায়তায় শিল্প, বাণিজ্য এবং বাণিজ্যকে বোঝাচ্ছে। আপনাকে উপস্থাপন করা নিবন্ধটি ই-বাণিজ্য এবং ই-ব্যবসায়ের মধ্যে পার্থক্য ব্যাখ্যা করে।

তুলনা রেখাচিত্র

তুলনা করার জন্য বেসই-বাণিজ্যই-ব্যবসা
অর্থইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্যদ্রব্য বাণিজ্য, ই-বাণিজ্য হিসাবে পরিচিত।ইন্টারনেট ব্যবহার করে ব্যবসা পরিচালনা করা ই-ব্যবসা নামে পরিচিত।
এটা কি?সাবসেটসুপারসেট
এটি কি আর্থিক লেনদেনের মধ্যে সীমাবদ্ধ?হ্যাঁনা
তারা কী করে?বাণিজ্যিক লেনদেনব্যবসায়িক লেনদেন
পন্থাবহির্মুখীঅ্যাম্বিভার্টেড
প্রয়োজনওয়েবসাইটওয়েবসাইট, সিআরএম, ইআরপি, ইত্যাদি
কোন নেটওয়ার্ক ব্যবহৃত হয়?ইন্টারনেটইন্টারনেট, ইন্ট্রানেট এবং এক্সট্রানেট।

ই-বাণিজ্য সংজ্ঞা

ই-কমার্স হল একটি সংক্ষেপণ যা বৈদ্যুতিন বাণিজ্যের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি সেই প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ক্রয়, বিক্রয়, লেনদেন, অর্ডার এবং প্রদান করা পণ্য এবং পরিষেবাদিগুলির জন্য ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রদান করা হয় ই-বাণিজ্য হিসাবে পরিচিত। এই ধরণের অনলাইন বাণিজ্যিক লেনদেনে, বিক্রয়কারী মুখোমুখি মিথস্ক্রিয়া ছাড়াই ক্রেতার সাথে যোগাযোগ করতে পারে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

ই-কমার্সের বাস্তব বিশ্বের প্রয়োগের কয়েকটি উদাহরণ হ’ল অনলাইন ব্যাংকিং, অনলাইন শপিং, অনলাইন টিকিট বুকিং, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ইত্যাদি etc.

ই-কমার্সের প্রাথমিক প্রয়োজনীয়তা একটি ওয়েবসাইট। বিপণন, বিজ্ঞাপন, বিক্রয় ও লেনদেন ইন্টারনেটের সহায়তায় করা হয়। যে কোনও আর্থিক লেনদেন, যা বৈদ্যুতিন মিডিয়ার সাহায্যে করা হয় তা হ’ল ই-বাণিজ্য। নীচে ই-কমার্সের প্রকারগুলি রয়েছে:

  • বি 2 বি – ব্যবসায়ের মধ্যে পণ্য ও পরিষেবাদির ক্রয়-বিক্রয় প্রক্রিয়াটি বিজনেস টু বিজনেস হিসাবে পরিচিত। উদাহরণ: ওরাকল, আলিবাবা, কোয়ালকম ইত্যাদি
  • বি 2 সি – প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ব্যবসায়ের দ্বারা গ্রাহকের কাছে পণ্য বিক্রি হয়। উদাহরণ: ইন্টেল, ডেল ইত্যাদি
  • সি 2 সি – গ্রাহকের সাথে গ্রাহকের মধ্যে বাণিজ্যিক লেনদেন। উদাহরণ: ওএলএক্স, কুইকার ইত্যাদি
  • সি 2 বি – ব্যবসায়ের সাথে গ্রাহকের মধ্যে বাণিজ্যিক লেনদেন।

ই-ব্যবসায় সংজ্ঞা

ইলেক্ট্রনিক বিজনেস, শীঘ্রই ই-ব্যবসা হিসাবে পরিচিত, ব্যবসায়ের অনলাইন উপস্থিতি। এটি এমন ব্যবসায় হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে যা ইন্টারনেট বা ইলেকট্রনিক ডেটা ইন্টারচেঞ্জের সাহায্যে করা হয় অর্থাৎ ই-ব্যবসা হিসাবে পরিচিত। ই-বাণিজ্য ই-ব্যবসায়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান তবে এটি একটি প্রয়োজনীয় অংশ নয়।

ই-বিজনেস কেবল পণ্য কেনা বেচায় সীমাবদ্ধ নয়, এর মধ্যে অন্যান্য ক্রিয়াকলাপও রয়েছে যা গ্রাহকদের পরিষেবা প্রদান, কর্মচারী, ক্লায়েন্ট বা ব্যবসায়িক অংশীদারদের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তারা যদি যোগাযোগ করতে পারে তবে ব্যবসায়ের অংশ হিসাবে কাজ করে they সংস্থার সাথে কথা বলুন, বা পরিষেবাগুলি সম্পর্কিত তাদের কোনও সমস্যা আছে ইত্যাদি ইত্যাদি সমস্ত বুনিয়াদি ব্যবসায়িক ক্রিয়াকলাপ বৈদ্যুতিন মিডিয়া ব্যবহার করে সম্পন্ন হয়। দুটি ধরণের ই-ব্যবসা রয়েছে, যা হ’ল:

  • খাঁটি-খেলুন: যে ব্যবসায়টি কেবলমাত্র একটি বৈদ্যুতিন অস্তিত্ব রয়েছে। উদাহরণ: হোটেল ডটকম
  • ব্রিক এবং ক্লিক করুন: ব্যবসায়ের মডেল, যার মধ্যে অনলাইনে অর্থাত্ বৈদ্যুতিন এবং অফলাইন উভয় অর্থ শারীরিক মোডে ব্যবসায়ের উপস্থিতি রয়েছে।

ই-বাণিজ্য এবং ই-ব্যবসায়ের মধ্যে মূল পার্থক্য

ই-কমার্স এবং ই-ব্যবসায়ের মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কিত হিসাবে নীচে উপস্থাপিত পয়েন্টগুলি যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে:

  1. ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য ও পরিষেবা কেনা বেচা ই-বাণিজ্য হিসাবে পরিচিত as ই-ব্যবসায়ের বিপরীতে যা ব্যবসায়ের বৈদ্যুতিন উপস্থিতি, যার মাধ্যমে ব্যবসায়ের সমস্ত কার্যক্রম ইন্টারনেটের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।
  2. ই-বাণিজ্য ই-ব্যবসায়ের একটি প্রধান উপাদান।
  3. ই-কমার্সে অর্থের সাথে সম্পর্কিত লেনদেন অন্তর্ভুক্ত থাকে তবে ই-ব্যবসায় অর্থের পাশাপাশি জড়িত ক্রিয়াকলাপ অন্তর্ভুক্ত করে।
  4. ই-কমার্সের একটি বহির্মুখী পদ্ধতি রয়েছে যা গ্রাহক, সরবরাহকারী, সরবরাহকারী ইত্যাদিকে কভার করে the অন্যদিকে, ই-ব্যবসায় একটি অবিভ্রান্ত পদ্ধতির রয়েছে যা অভ্যন্তরীণ পাশাপাশি বাহ্যিক প্রক্রিয়াগুলিকেও অন্তর্ভুক্ত করে।
  5. ই-কমার্সের এমন একটি ওয়েবসাইট দরকার যা ব্যবসায়ের প্রতিনিধিত্ব করতে পারে। বিপরীতে, ই-ব্যবসায়ের ইন্টারনেটে ব্যবসা পরিচালনার জন্য একটি ওয়েবসাইট, গ্রাহক সম্পর্ক সম্পর্ক এবং এন্টারপ্রাইজ রিসোর্স প্ল্যানিং দরকার।
  6. বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে সংযোগ রাখতে ই-কমার্স ইন্টারনেট ব্যবহার করে। ই-ব্যবসায়ের বিপরীতে, পার্টির সাথে সংযোগের জন্য ইন্টারনেট, ইন্ট্রানেট এবং এক্সট্রানেট ব্যবহার করা হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে যে কোন প্রশ্ন আপনার মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

অন্য সকল ক্লাস এর অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমূহ :-

  • ২০২১ সালের SSC / দাখিলা পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC / আলিম পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ভোকেশনাল: ৯ম/১০ শ্রেণি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • HSC (বিএম-ভোকে- ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স) ১১শ ও ১২শ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের SSC ও দাখিল এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১১ম -১২ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের HSC ও Alim এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক

৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৭ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ ,

৮ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৯ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় SSC এসাইনমেন্ট :

বিজ্ঞান ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট, ব্যবসায় ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট, মানবিক ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় HSC এসাইনমেন্ট :

মানবিক ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট, বিজ্ঞান ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট , ব্যবসায় ১ম ও ২য় বর্ষের এসাইনমেন্ট

শেয়ার করুন:

1 thought on “hsc ভোকেশনাল ১২শ শ্রেণির কম্পিউটার অপারেশন এন্ড মেইনটেন্যান্স (১) ২য় পত্র ৪র্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্টের সমাধান ২০২১, ই-কমার্স ও ই-বিজনেস এর ব্যবহার নিরূপণ

  1. বিষয়বস্তু পরিচালনার ক্ষমতা।
    প্রচার এবং ছাড় কোড সরঞ্জাম।
    একটি সহজে ব্যবহারযোগ্য চেকআউট।
    সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজড কোড এবং লেআউট।
    প্রতিবেদন সরঞ্জাম এবং কাস্টম প্রতিবেদন বৈশিষ্ট্য।
    একটি সমন্বিত ব্লগ বা নিবন্ধ বিভাগ।
    ইমেইল মার্কেটিং ফিচার বা ইন্টিগ্রেশন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *