ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে জামানতের ভূমিকা এবং বিভিন্ন প্রকারের জামানত সম্পর্কে ধারনা

ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে জামানতের ভূমিকা এবং বিভিন্ন প্রকারের জামানত সম্পর্কে ধারনা

এইচ এস সি পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা
শেয়ার করুন:
শ্রেণি: HSC ইন কমার্স/-2021 বিষয়: ব্যাংকিং ও বিমা এসাইনমেন্টেরের উত্তর 2021
এসাইনমেন্টের ক্রমিক নংঃ 05 বিষয় কোডঃ 1715
বিভাগ: ভোকেশনাল শাখা
বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস// https://www.banglanewsexpress.com/

এসাইনমেন্ট শিরোনামঃ ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে জামানতের ভূমিকা এবং বিভিন্ন প্রকারের জামানত সম্পর্কে ধারনা

শিখনফল/বিষয়বস্তু :

  • ব্যাংক ঋণ সম্পর্কে ধারনা লাভ করতে পারবে,
  • জামানতের প্রয়ােজনীয়তা সম্পর্কে জানতে পারবে,
  • জামানতের প্রকারভেদের ধারনা পাবে,
  • জামানত গ্রহনের জন্য কি কি বিষয় বিবেচনা করা হয় তা ব্যাখ্যা করতে পারবে,

নির্দেশনা (সংকেত/ ধাপ/ পরিধি): 

  • ব্যাংক ঋণের সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য ব্যাখ্যা করতে হবে।,
  • ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে জামানতের প্রয়ােজনীয়তা গুলাে আলােচনা করতে হবে।,
  • বিভিন্ন প্রকার জামানত সম্পর্কে ব্যাখ্যা দিতে হবে।,
  • জামানত গ্রহনের ক্ষেত্রে বিবেচ্য বিষয় সমুহ বর্ণনা করতে হবে।,

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

  • ব্যাংক ঋণের সংজ্ঞা ও বৈশিষ্ট্য ব্যাখ্যা করতে হবে।,

ব্যাংক ঋণ কি ব্যাংক তার তহবিল থেকে জনগণ বা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে যে ঋণ দেয় তাকে ব্যাংকের ঋণ, অগ্রিম বা আগাম বলে। ব্যাংক, বিশেষ করে বাণিজ্যিক ব্যাংক বিভিন্ন হিসাবের মাধ্যমে আমানতকারীদের কাছ থেকে যে অর্থ সংগ্রহ করে তা থেকে বিধিবদ্ধ তারল্য হিসাবে একটা অংশ সংরক্ষণ করে বাকি অংশ ঋণ দেয়। ক্ষেত্র বিশেষে কিছু অংশ বিনিয়ােগ করলেও ব্যাংকের তহবিল ব্যবহারের মূল ক্ষেত্র হলাে ঋণ বা অগ্রিম প্রদান।

নিচে ব্যাংক ঋণের কিছু সংজ্ঞা উল্লেখ করা হলাে ঃ

১. Prof. Hanson এর মতে ঋণ হিসাবের মাধ্যমে বা জমাতিরিক্ত ঋণ হিসাবে ব্যাংক তার মক্কেলকে যে অগ্রিম দিয়ে থাকে তাকে ব্যাংক ঋণ বলে।

২. Oxford Dictionary অনুসারে ব্যাংক কর্তৃক একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা সাধারণত একটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য নির্দিষ্ট সুদের হারে মক্কেলকে দেওয়া হলে তাকে ব্যাংক ঋণ বা ব্যাংকের আগাম বলে।

৩. বাংলাদেশের বিশিষ্ট ব্যাংকবিষয়ক লেখক অধ্যাপক ডঃ এ আর খান এর মতে ব্যাংক ঋণ বলতে ব্যাংক কর্তৃক কোন ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গকে অর্থের তাৎক্ষণিক ব্যবহারের সুযােগ দেওয়াকে বুঝায় যা সে পূর্বসম্মত কোন ভবিষ্যত তারিখের মধ্যে পরিশােধ করবে।

উপরের সংজ্ঞাগুলাের আলােকে বলা যায় ব্যাংক তার আমানত হিসাবে সংগৃহীত তহবিল মুনাফা অর্জনের লক্ষ্যে ঋণ হিসাবে দিলে তাকে ব্যাংকের ঋণ বলে। ব্যাংক সাধারন ঋণ বা ধার, নগদ ঋণ ও জমাতিরিক্ত ঋণ এই তিন ধরনের ঋণ দিয়ে থাকে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

ক) প্রাথমিক চাহিদা আমানত

চলতি বা সঞ্চয়ী হিসাব খুলে মক্কেল ঐ হিসাবে যে অর্থ জমা করে তাকে প্রাথমিক আমানত বা প্রাথমিক চাহিদা আমানত বলে। এই হিসাবে শুধুমাত্র নগদ অর্থই জমা করা হয় না বরং চেক বা অন্য যেকোন আদায়যোগ্য দাবীও আমানত হিসাবে জমা করা যায়। বলেন প্রকৃত নগদ অর্থের জমা (অথবা চেক ও অন্য নগদ দাবী) থেকে প্রাথমিক আমানতের সৃষ্টি হয়।

এই আমানত জমার ফলে বাইরে থেকে অর্থ এসে ব্যক্তিক আমানত হিসাবে ব্যাংকে জমা হয়। প্রাথমিক আমানত জমার ফলে জমাগ্রহণকারী ব্যাংকের নদ সঞ্চিতি বৃদ্ধি পায়। মনে করি, সুজন তার সঞ্চয়ী হিসাবে নগদ ১০০০ টাকা এবং অন্য ব্যক্তি থেকে পাওয়া একটি ৫০০০ টাকার চেক জমা করলো। এক্ষেত্রে সুজনের হিসাবে মোট ৬০০০ টাকার চাহিদা আমানত সৃষ্টি হলো এবং ব্যাংকের নগদ সঞ্চিতি একই পরিমাণ বৃদ্ধি পেলো।

খ) উৎপন্ন চাহিদা আমানত

যে আমানত সাধারনভাবে মক্কেল কর্তৃক আমানত হিসাবে ব্যাংকে জমা করা হয় না বরং বাণিজ্যিক ব্যাংক তার বিশেষ কৌশলে প্রাথমিক আমানতের উপর নির্ভর করে সৃষ্টি করে তাকে উৎপন্ন আমানত বা উৎপন্ন চাহিদা আমানত বলে। মতে উৎপন্ন আমানত বলতে ঐ আমানতকে বুঝায় যা ব্যাংক নিজের বিপক্ষে ও ঋণ গ্রহীতার পক্ষে সৃষ্টি করে, অথবা ব্যাংক কোন সম্পত্তি বা সিকিউরিটিজ কিনলে বিক্রেতার পক্ষে সৃষ্টি করে। অর্থাৎ উৎপন্ন আমানত সৃষ্টির বিষয়টি ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে এবং এই আমানতের সবটাই ব্যাংক ঋণের পরিমাণ বৃদ্ধি করে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে জামানতের প্রয়ােজনীয়তা গুলাে আলােচনা করতে হবে।,

ব্যাংক তার কোন মক্কেলকে ঋণ দেওয়ার আগে এই মর্মে নিশ্চিত হতে চায় যে, ঋণের টাকা সময়মত ফেরত পাওয়া যাবে। কারণ, কোন কোন মক্কেল ঋণ নেওয়ার পর ঋণের টাকা ঠিকমত পরিশোধ নাও করতে পারে। তাই ঋণ পরিশোধের নিশ্চয়তার প্রমাণ স্বরূপ ঋণগ্রহীতা ব্যাংককে যে সম্পত্তি বা গ্যারান্টি দেয় তাই ঋণের জামানত হিসাবে পরিচিত।

ব্যাংক ঋণের নিরাপত্তা বিধানের উদ্দেশ্যে ঋণগ্রহীতার স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি অথবা ঋণগ্রহীতা বা তৃতীয় পক্ষের নিশ্চয়তা গ্রহণ করে থাকে। ঋণগ্রহীতা কোন কারণে ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পারলে ব্যাংক জামানত বিক্রি করে অথবা নিশ্চয়তা দানকারী তৃতীয় পক্ষের কাছ থেকে ঋণের টাকা আদায় করতে পারে।

জামানত হলো ঋণগ্রহীতার দেওয়া এমন কোন সম্পত্তি যা ঋণগ্রহীতা ঋণের অর্থ ফেরত দিতে ব্যর্থ হলে ঋণদাতা বিক্রি করে বা হস্তান্তর করে তার ঋণের অর্থ ফেরত পেতে পারে। সবশেষে বলা যায়, ব্যাংক কর্তৃক ঋণ দেওয়ার সময় ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে ঋণের টাকা পরিশোধের নিশ্চয়তা হিসাবে যে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বা ব্যক্তিগত গ্যারান্টি অথবা তৃতীয় পক্ষের দেওয়া গ্যারান্টি পাওয়া যায় তাকে ব্যাংক ঋণের জামানত বলে।

ঋণ গ্রহণের সময় ঋণগ্রহীতা ঋণের টাকা পরিশোধের নিশ্চয়তা হিসাবে যে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি অথবা ব্যক্তিগত বা তৃতীয় পক্ষের গ্যারান্টি ব্যাংককে দিয়ে থাকে তাকে ব্যাংক ঋণের জামানত বলে। স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি জামানত রাখলে তাকে অব্যক্তিক জামানত বলে এবং ব্যক্তিগত বা তৃতীয়পক্ষের গ্যারান্টি জামানত হিসাবে রাখলে তাকে ব্যক্তিক জামানত বলে। এই জামানত সঠিকভাবে মূল্যায়ণ করে তারপরে ব্যাংক ঋণ দিয়ে থাকে।

একটি উত্তম জামানত বলতে সাধারণভাবে ঐ জামানতকে বুঝায় যার মালিকানা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই এবং যা সহজে বিক্রি করে ঋণের অর্থ আদায় করা যায়। ব্যাপক অর্থে বলতে গেলে কোন জামানতের নিুলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলো থাকলে তবেই তাকে উত্তম জামানত বলা হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • বিভিন্ন প্রকার জামানত সম্পর্কে ব্যাখ্যা দিতে হবে।,

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • জামানত গ্রহনের ক্ষেত্রে বিবেচ্য বিষয় সমুহ বর্ণনা করতে হবে।,

১. জামানতের গ্রহণযোগ্যতা: কোন জামানতী সম্পত্তি আইনত গ্রহণযোগ্য না হলে ঐ জামানতকে উত্তম জামানত বলা যায় না। কারণ, ঋণের টাকা ফেরত পাওয়া না গেলে এজাতীয় সম্পত্তি বিক্রি করে ঋণের অর্থ আদায় করা ব্যাংকের জন্য অসম্ভব হয়ে পড়ে।

২. জামানতের বিক্রয়যোগ্যতা: যে জামানতী সম্পত্তি সহজে বিক্রি করা যায় তাকেই উত্তম জামানত বলে। সহজে ও নির্বিঘ্নে বিক্রয়যোগ্য জামানত ব্যাংক ঋণের নিরাপত্তা বাড়ায়।

৩. জামানতী সম্পত্তির তারল্য: যেই জামানতের পর্যাপ্ত তারল্য থাকে না তাকে উত্তম জামানত বলা যায় না। তাই জামানতী সম্পত্তি গ্রহণ করার আগেই ঐ সম্পদের তারল্য কেমন তা নির্ধারণ করা জরুরী। এক্ষেত্রে তারল্য বলতে কত সহজে, কত কম ক্ষতিতে ও কত দ্রুত জামানতী সম্পত্তি বিক্রি করে নগদ অর্থ পাওয়া যায় তাকে বুঝায়।

৪. জামানতী সম্পদের স্বত্ত্ব: জামানতী সম্পত্তির উপরে ঋণ গ্রহীতার প্রকৃত মালিকানা না থাকলে ঐ জামানত ব্যাংকের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। জামানতী সম্পত্তির মালিকানায় ঝামেলা থাকলে তাকে উত্তম জামানত বলা যায় না। তাই ব্যাংক জামানতী সম্পদ গ্রহণের পূর্বে এর মালিকানা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়।

৫. জামানতী সম্পদের মূল্য: জামানতী সম্পদের মূল্য অবশ্যই ঋণের পরিমাণের চেয়ে যথেষ্ট বেশি হওয়া উচিত। এতে ব্যাংক ঋণের নিরাপত্তা বৃদ্ধি পায়। কারণ, জামানতী সম্পদের মূল্য ঋণের পরিমাণের চেয়ে কম বা সমান হলেও বিক্রি করার সময় ঐ দামে বিক্রি করা যায় না। তাই মোট ঋণের পরিমাণের চেয়ে বেশি মূল্যবাণ সম্পত্তিকে উত্তম জামানত বলা হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

৬. জামানতী সম্পদের মূল্যের স্থিতিশীলতা: জামানতী সম্পত্তির বাজার মূল্য খুব বেশি উঠানামা করলে ঐ জামানতের বিপক্ষে ঋণ দেওয়া ব্যাংকের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। কারণ, ঋণ অনাদায়ী থাকলে জামানতী সম্পত্তি বিক্রির সময় যদি তার বাজার মূল্য কমে যায় তবে ব্যাংক ঋণের সম্পূর্ণ অর্থ ফেরত পেতে পারে না। এজন্য জামানতী সম্পত্তির মূল্য স্থিতিশীল হওয়া উত্তম জামানতের বৈশিষ্ট্য।

৭. জামানতের দায়মুক্ততা: যে সম্পদ অন্য কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছে জামানত হিসাবে দায়বদ্ধ আছে তা ব্যাংক ঋণের বিপক্ষে জামানত হিসাবে গ্রহণ করা ব্যাংকের জন্য নিরাপদ নয়। তাই দায়মুক্ত জামানতই উত্তম জামানত।

৮. পণ্যের দখল: ব্যাংকের এমন ধরনের জামানত নেওয়া উচিত যা খুব সহজেই নিজের দখলে নেওয়া যায়। বিশেষ করে জামানত হিসাবে পণ্য নিলে ঋণ মঞ্জুরের সময় অথবা ঋণ চুক্তি সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে ঐ সম্পত্তির দখল নেওয়া উচিত।

৯. জামানতী সম্পত্তির গুণাগুণ: জামানতী সম্পদ যদি পণ্যদ্রব্য হয় তবে তা উন্নতমানের হওয়া উচিত। বিলাসদ্রব্য বা যেসব পণ্যের চাহিদা সবসময় পরিবর্তন হয় এমন পণ্য জামানত হিসাবে গ্রহণ করা উচিত নয়। এছাড়াও যে পণ্য পচণশীল প্রকৃতির বা যে পণ্যের রং ও গুণাগুণ ইত্যাদি কমে যায় তা জামানত হিসাবে গ্রহণ করা উচিত নয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

সবার আগে Assignment আপডেট পেতে Follower ক্লিক করুন

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

অন্য সকল ক্লাস এর অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমূহ :-

  • ২০২১ সালের SSC / দাখিলা পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC / আলিম পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ভোকেশনাল: ৯ম/১০ শ্রেণি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • HSC (বিএম-ভোকে- ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স) ১১শ ও ১২শ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের SSC ও দাখিল এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১১ম -১২ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের HSC ও Alim এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক

৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৭ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ ,

৮ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৯ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১

বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস// https://www.banglanewsexpress.com/

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় SSC এসাইনমেন্ট :

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় HSC এসাইনমেন্ট :

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *