ধরুন, আপনি “গ” কোম্পানি লিমিটেড এর একজন সাধারন শেয়ারহােল্ডার। একজন সাধারন শেয়ার হােল্ডার হিসেবে আপনি কী কী বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হবেন এবং কী কী সুবিধা ও অসুবিধা ভােগ করবেন তা আলােচনা করুন।

ধরুন, আপনি “গ” কোম্পানি লিমিটেড এর একজন সাধারন শেয়ারহােল্ডার। একজন সাধারন শেয়ার হােল্ডার হিসেবে আপনি কী কী বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হবেন এবং কী কী সুবিধা ও অসুবিধা ভােগ করবেন তা আলােচনা করুন।

Assignment এসএসসি ডিগ্রি ও উন্মুক্ত পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা
শেয়ার করুন:
শ্রেণি: ১০ম/ ssc/ উন্মুক্ত-2021 বিষয়: ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং এসাইনমেন্টেরের উত্তর 2021
এসাইনমেন্টের ক্রমিক নংঃ 05 বিষয় কোডঃ 2667
বিভাগ: ব্যবসায় শাখা
বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস// https://www.banglanewsexpress.com/

এসাইনমেন্ট শিরোনামঃ ধরুন, আপনি “গ” কোম্পানি লিমিটেড এর একজন সাধারন শেয়ারহােল্ডার। একজন সাধারন শেয়ার হােল্ডার হিসেবে আপনি কী কী বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হবেন এবং কী কী সুবিধা ও অসুবিধা ভােগ করবেন তা আলােচনা করুন।

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

শেয়ার

শেয়ার হলো একটি ডকুমেন্ট যা কোম্পানির আংশিক মালিকানা উপস্থাপন করে। প্রকৃতপক্ষে শেয়ারহোল্ডাররাই কোম্পানির প্রকৃত মালিক। একটি কোম্পানি সাধারণ শেয়ার বা অগ্রাধিকার শেয়ার বিক্রয় করে ইক্যুইটি মুলধন সংগ্রহ করতে পারে। কোম্পানির শেয়ার মূলধনের ক্ষুদ্র অথচ সমান প্রত্যেকটি একককে যেভাবে শেয়ার নামে অভিহিত করা হয় স্টকের ক্ষেত্রে তা হওয়া আবশ্যক নয়।

এক লক্ষ টাকার শেয়ার মূলধনকে দশ হাজার শেয়ারে বিভক্ত করা হলে প্রতিটি শেয়ারের মুল্য দশ টাকা হবে কিন্তু স্টকের ক্ষেত্রে প্রতিটি এককে সমপরিমাণ মূল্যের হতে হবে এমন নয়। স্টককে সুবিধা অনুযায়ী পাঁচ টাকা, দশ টাকা, বিশ টাকা মূল্যের স্টকে রূপান্তর করা যেতে পারে।

শেয়ারকে স্টকে পরিণত করতে হলে কোম্পানির সাধারণ সভায় বিশেষ প্রস্তাব পাস করতে হয় এবং প্রস্তাব পাসের পরবর্তী পনের দিনের মধ্যে এ সম্পর্কে কোম্পানি নিবন্ধককে অবহিত করতে হয়। এরপর সদস্য সূচিতে প্রত্যেক সদস্যের নামের পাশে বর্ণিত তার শেয়ার পরিমাণের স্থলে স্টকের পরিমাণ ও মূল্য উল্লেখ করতে হয়। অবশ্য সাধারণ সভার সিদ্ধান্তক্রমে পরবর্তী সময়ে স্টককে পুনরায় শেয়ারে পরিণত করা যায়। আমাদের উপমহাদেশে শেয়ার ও স্টকের মধ্যে পার্থক্য করা হলেও যুক্তরাষ্ট্রে শেয়ার ও স্টকের মধ্যে কোনো পার্থক্য করা হয় না। সেখানে সাধারণভাবে শেয়ারকে স্টক বলা হয়ে থাকে।

সাধারণ শেয়ারের বৈশিষ্ট্য

সাধারন শেয়ারের বৈশিষ্ট্য সমুহ নিচে আলোচনা করা হলো:

১. মালিকানা: সাধারণ শেয়ারহোল্ডারগণই একটি কোম্পনির প্রকৃত মালিক। যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কোম্পানির সাধারণ শেয়ার ক্রয়ের মাধ্যমে মালিকানা লাভ করেন। তবে এরা যে পরিমাণ শেয়ার ধারন করে সে পরিমাণ অংশের মালিক বলা হয়। অর্থাৎ এদেরকে কোম্পানির আংশিক মালিক বলা হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

২. আঙ্কিক মুল্য: আঙ্কিক মূল্য বলতে শেয়ারের গায়ে লিখিত মূল্যকে বুঝায়। প্রতিটি শেয়ারের একটি নির্দিষ্ট লিখিত মুল্য থাকে।

৩. ভোটাধিকার: সাধারণত প্রত্যেক সাধারণ শেয়ারহোল্ডারগণের একটি করে ভোট প্রদানের অধিকার রয়েছে। শেয়ার মালিকগণ কোম্পানির যে কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে। এই ভোটাধিকার প্রয়োগ করে তারা কোম্পানির পরিচালক পর্ষদ নির্বাচন করেন। বার্ষিক সাধারণ সভায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

৪. লভ্যাংশ: নিট আয়ের যে অংশ শেয়ারহোল্ডারগণের মধ্যে বন্টন করা হয় তাকে লভ্যাংশ বলে। লভ্যাংশ প্রদান কোম্পানির পরিচালক পর্ষদের সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করে। বেশিরভাগ কোম্পানি বাৎসরিক ভিত্তিতে লভ্যাংশ প্রদান করে থাকে। লভ্যাংশ দু’ভাবে প্রদান করা হয়। যেমন- নগদ লভ্যাংশ এবং স্টক লভ্যাংশ ।

৫. সীমাবদ্ধ দায়: শেয়ারহোল্ডারদের দায় তাদের শেয়ার প্রতি বিনিয়োগকৃত অর্থের পরিমাণ দ্বারা সীমাবদ্ধ। যেমন: তুমি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানির ১০০ টাকা মূল্যের ১০০টি শেয়ার ক্রয় করেছে। এক্ষেত্রে তোমার দায় ১০,০০০ টাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে।

৬. মেয়াদ: সাধারণ শেয়ারের নির্দিষ্ট কোন মেয়াদ থাকে না। এটি পারপিচুয়াল বা চিরস্থায়ী। যতদিন কোম্পানির অস্তিত্ব থাকবে শেয়ারহোল্ডারগণ ততদিন ঐ কোম্পানির মালিক থাকবেন। তবে এর মালিকানা হস্তান্তর করা যায়।

৭. কোম্পানির উপর নিয়ন্ত্রণ: শেয়ারহোল্ডারগণ কোম্পানির প্রকৃত মালিক হওয়ায় তারা কোম্পানির যাবতীয় কার্যক্রম ভোটাধিকার প্রয়োগ করার মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। কারণ, শেয়াহোল্ডারদের দ্বারা নির্বাচিত পরিচালনা পর্ষদ কোম্পানির সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকে

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

সাধারন শেয়ারের সুবিধা ও অসুবিধা

বিনিয়োগের হাতিয়ার হিসেবে সাধারণ শেয়ারের কিছু সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে। সেগুলো সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো:

সুবিধা

১. অধিক আয়: একটি ভাল সাধারণ শেয়ার বিনিয়োগ করা হলে বিনিয়োগকারীর জন্য ভালো আয়ের উৎস হতে পারে। বিনিয়োগের অন্যান্য উৎস যেমন: অগ্রাধিকার শেয়ার, বন্ড ও ডিবেঞ্চার থেকে বিনিয়োগকারীরা নির্দিষ্ট হাওে আয় পেয়ে থাকে। কিন্তু সাধারণ শেয়ার থেকে আয় নির্দিষ্ট থাকে না। ফলে কোম্পানি অধিক আয় করলে বিনিয়োগকারীদের প্রাপ্ত আয়ও বৃদ্ধি পায়।

২. সীমাবদ্ধ দায়: সাধারণ শেয়ার মালিকরা যৌথভাবে কোম্পানির ঝুঁকি বহন করে। কোনো অবস্থাতেই একজন বিনিয়োগকারীর ঝুঁকি তার বিনিয়োগকৃত অর্থের অধিক হয় না। তাই সাধারন শেয়ারহোল্ডারদেও দায় তাদের শেয়ারের পরিমাণ দ্বারা সীমাবদ্ধ থাকে।

৩. তারল্য: সাধারণ শেয়ার বিনিয়োগকারীর কাছে তরল সম্পদ হিসেবে গণ্য হয়। কারণ যেকোনো সময় সাধরন শেয়ার বিক্রি করে নগদ টাকায় রূপান্তর করা যায়।

অসুবিধা

১. ঝুঁকি: সাধারণ শেয়ারে বিনিয়োগ অপেক্ষাকৃত অধিক ঝুঁকিপূর্ণ। শেয়ারবাজারে অনেক ফটকা বিনিয়োগকারী বা জুয়াড়ি থাকে যারা শেয়ারের মূল্যকে প্রভাবিত করে থাকে। ফলে সঠিক শেয়ারে বিনিয়োগ করতে না পারলে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

২. মুনাফা ও সম্পত্তি বণ্টনে অধিকার: কোম্পানির লভ্যাংশ বণ্টনের সময় অগ্রাধিকার শেয়ার, বন্ড ও ঋণপত্রের মালিকদের প্রাপ্ত আয় সবার আগে পরিশোধ করা হয় তারপর যদি কোন অর্থ অবশিষ্ট থাকে তা সাধারণ শেয়ার মালিকদের মধ্যে বন্টন করা হয়। আবার কোম্পানি অবসায়ন সময় সম্পত্তি বিক্রি থেকে প্রাপ্ত অর্থ দিয়ে সকল দায় পরিশোধ করার পর অবশিষ্ট অর্থ শেয়ার মালিকদেও মাঝে বন্টন করা হয়। অর্থাৎ, উভয় ক্ষেত্রেই অগ্রাধিকার শেয়ার, বন্ড ও ঋণপত্র মালিকদের দাবি পূরণের ক্ষেত্রে সাধারণ শেয়ার মালিকদের চেয়ে অগ্রাধিকার প্রদান করা হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

সবার আগে Assignment আপডেট পেতে Follower ক্লিক করুন

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

অন্য সকল ক্লাস এর অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমূহ :-

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় SSC এসাইনমেন্ট :

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় HSC এসাইনমেন্ট :

  • ২০২১ সালের SSC / দাখিলা পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC / আলিম পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ভোকেশনাল: ৯ম/১০ শ্রেণি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ভোকেশনাল ও দাখিল (১০ম শ্রেণির) অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • HSC (বিএম-ভোকে- ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স) ১১শ ও ১২শ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের SSC ও দাখিল এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১১ম -১২ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের HSC ও Alim এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক

৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৭ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ ,

৮ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৯ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১

বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস// https://www.banglanewsexpress.com/

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *