গণতন্ত্রের প্রকারভেদ আলোচনা করো, গণতান্ত্রিক সরকারের প্রকারভেদ,গণতন্ত্রের কতো প্রকার ও কি কি?

গণতন্ত্রের প্রকারভেদ আলোচনা করো, গণতান্ত্রিক সরকারের প্রকারভেদ,গণতন্ত্রের কতো প্রকার ও কি কি?

প্রশ্ন সমাধান শিক্ষা

বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস এর সর্বশেষ আপডেট পেতে Google News অনুসরণ করুন

শেয়ার করুন:

প্রশ্ন সমাধান: গণতন্ত্রের প্রকারভেদ আলোচনা করো, গণতান্ত্রিক সরকারের প্রকারভেদ,গণতন্ত্রের কতো প্রকার ও কি কি?

গণতন্ত্র কি

‘গণতন্ত্র’ শব্দের উৎপত্তি গ্রীক ভাষায় ডেমোক্র্যাটিয়া থেকে। এর অর্থ, ‘জনগণের দ্বারা শাসন।’ এটি দুটি সংক্ষিপ্ত শব্দকে একত্রিত করেছে: ‘ডেমো(Demo)’ অর্থ একটি নির্দিষ্ট নগর-রাষ্ট্রের মধ্যে বসবাসকারী সমগ্র নাগরিক এবং ‘ক্র্যাটোস(Kratos)’ অর্থ ক্ষমতা বা শাসন। খ্রিস্টপূর্ব ৫ম শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে কিছু গ্রীক নগর-রাজ্যে বিদ্যমান রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে বোঝানোর জন্য এটি ব্যবহৃত হয়েছিল।

বিশ্বের প্রথম গণতন্ত্র সৃষ্টি হয় গ্রিসের একটি শহর-রাষ্ট্র এথেন্সে। গণতন্ত্রের জনক বলা হয় এরিষ্টটলকে। তবে, আধুনিক গণতন্ত্রের জনক হলেন জন লক।


আরো ও সাজেশন:-

গণতন্ত্রের প্রকারভেদ

গণতন্ত্রের প্রধান প্রকারগুলো হল হল- যথা:

  • প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র
  • প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্র
  • প্রেসিডেন্সিয়াল গণতন্ত্র
  • সংসদীয় গণতন্ত্র
  • কর্তৃত্ববাদী গণতন্ত্র 
  • অংশগ্রহণমূলক গণতন্ত্র
  • ইসলামী গণতন্ত্র

১. প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র (Direct democracy)

প্রত্যক্ষ গণতন্ত্র হল যখন নাগরিকরা কোনো মধ্যবর্তী প্রতিনিধি বা সংসদের হাউস ছাড়াই সরাসরি কোনো নীতির পক্ষে ভোট দিতে পারে। সরকারকে কোনো আইন বা নীতি পাস করতে হলে তা জনগণের কাছে যায়। তারা ইস্যুতে ভোট দেয় এবং তাদের নিজেদের দেশের ভাগ্য নির্ধারণ করে। জনগণ এমনকি নিজেরাই ইস্যু তুলে আনতে পারে, যতক্ষণ না তাদের ইস্যুতে যথেষ্ট ঐকমত্য থাকে। এমনকি জনসমর্থন ছাড়া করও বাড়ানো যায় না!

উদাহরণস্বরূপ, সুইজারল্যান্ড একটি সফল প্রত্যক্ষ গণতন্ত্রের দেশ। দেশের কিছু নির্দিষ্ট জায়গায় সমাবেশে লোকেরা একত্রিত হয় এবং তাদের সমাজের আইনে ভোট দেয়।

২. প্রতিনিধিত্ত গণতন্ত্র (Representative democracy)

প্রতিনিধিত্বমূলক গণতন্ত্র বা পরোক্ষ গণতন্ত্র হল যখন জনগণ তাদের প্রতিনিধিত্বকারীকে ভোট দিয়ে সংসদে পাঠায় । এটি বর্তমানে গণতন্ত্রের সবচেয়ে সাধারণ রূপ।

এর পাশাপাশি, এটি রাজ্যের সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষার উপর জোর দেয়। তারা যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচন করার মাধ্যমে, তাদের অভিযোগ আরও দক্ষতার সাথে সোচ্চার করতে সক্ষম হবে। গণতন্ত্রের এই রূপের নেতিবাচক দিক হল নির্বাচিত সরকার নাগরিকদের স্বার্থ অনুসরণ করতে ব্যর্থ হতে পারে।

বিশ্বের অধিকাংশ প্রতিনিধিত্বশীল গণতন্ত্র নিজেদেরকে উদার গণতন্ত্র বলে মনে করে। এর কারণ হল তারা সমগ্র রাষ্ট্রের চেয়ে তাদের স্বতন্ত্র নাগরিকদের চাহিদাকে বেশি মূল্য দেয়। এই কারণেই ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা কঠিন।

৩. প্রেসিডেন্সিয়াল গণতন্ত্র (Presidential democracy)

রাষ্ট্রপতিশাসিত গণতন্ত্রের অধীনে, একজন রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি সরকারের উপর উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ক্ষমতা থাকে। তিনি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে রাজ্যের নাগরিকদের দ্বারা নির্বাচিত।

এই পদ্ধতিতে, রাষ্ট্রপতি এবং সরকারের নির্বাহী শাখা আইনসভার কাছে দায়বদ্ধ নয়, তবে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে আইনসভাকে সম্পূর্ণরূপে বরখাস্ত করতে পারে না। একইভাবে, আইনসভা রাষ্ট্রপতিকে তার অফিস থেকে অপসারণ করতে পারে না। রাষ্ট্রপতি যেকোন বিল গ্রহণ প্রতিরোধ করার জন্য ভেটো দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। যদি আইনসভা যথেষ্ট ভোট বা সমর্থন সংগ্রহ করতে পারে তবে এটি রাষ্ট্রপতির ভেটোকে অগ্রাহ্য করতে পারে।

রাষ্ট্রপতিশাসিত গণতন্ত্রে, রাষ্ট্রপ্রধানও সরকারের প্রধান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, আর্জেন্টিনার মতো দেশগুলো এই ধরণের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা কায়েম করে।

৪. সংসদীয় গণতন্ত্র (Parliamentary democracy)

যে গণতন্ত্র আইনসভাকে অধিক ক্ষমতা দেয় তাকে সংসদীয় গণতন্ত্র বলে। কার্যনির্বাহী শাখা শুধুমাত্র আইনসভা, অর্থাৎ সংসদ থেকে তার গণতান্ত্রিক বৈধতা লাভ করে। নির্বাচিত আইনসভা (সংসদ) সরকার প্রধান (প্রধানমন্ত্রী) বাছাই করে এবং যে কোনো সময় অনাস্থা ভোট পাস করে প্রধানমন্ত্রীকে অপসারণ করতে পারে।

এ-ধরনের সরকার ব্যবস্থায় রাষ্ট্রপ্রধান ‘রাষ্ট্রপতি’ এবং সরকার প্রধান ‘প্রধানমন্ত্রী’ থাকে এবং তারা আলাদা এবং উভয়েরই ক্ষমতার ভিন্নতা রয়েছে।বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, রাষ্ট্রপতি হয় একজন দুর্বল রাজা (যেমন ইউনাইটেড কিংডম, বাংলাদেশ) বা আনুষ্ঠানিক প্রধান (যেমন ভারত)।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

৫. কর্তৃত্ববাদী গণতন্ত্র (Authoritarian democracy)

এটি তখন হয় যখন শুধুমাত্র অভিজাতরা সংসদীয় প্রক্রিয়ার একটি অংশ হয়। রাজ্যের ব্যক্তিরা তাদের নির্বাচিত প্রার্থীকে ভোট দেয়, তবে, সাধারণ লোকেরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারে না। ফলে, শেষ পর্যন্ত, অভিজাতরাই রাষ্ট্রের শাসক এবং জনগণের বিভিন্ন স্বার্থের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়। ভ্লাদিমির পুতিনের অধীনে আধুনিক রাশিয়া এই ধরনের শাসনের একটি ক্লাসিক উদাহরণ। এছাড়াও রয়েছে হংকং।

৬. অংশগ্রহণমূলক গণতন্ত্র (Participatory democracy)

কর্তৃত্ববাদী গণতন্ত্রের ঠিক বিপরীত হল গণতন্ত্রের অংশগ্রহণমূলক রূপ। এটি রাষ্ট্রকে ছোট ছোট নেটওয়ার্কে বিভক্ত করে ক্ষমতাহীনদের ক্ষমতায়ন করে এবং সম্প্রদায়-ভিত্তিক তৃণমূল রাজনীতিকে ক্ষমতায়ন করতে পছন্দ করে। এটি নিছক ভোট দেওয়ার পরিবর্তে আলোচনা ও সমালোচনাকে গুরুত্ব দেয়।


Paragraph/Composition/Application/Email/Letter/Short Storiesউত্তর লিংক
ভাবসম্প্রসারণ/প্রবন্ধ, অনুচ্ছেদ/ রচনা/আবেদন পত্র/প্রতিবেদন/ চিঠি ও ইমেলউত্তর লিংক

যদিও বর্তমানে, কোন দেশ সক্রিয়ভাবে গণতন্ত্রের এই ফর্ম অনুশীলন করে না। যাইহোক, অনেক সামাজিক আন্দোলন, যেমন আন্তর্জাতিক দখল আন্দোলন, ভেনেজুয়েলায় বলিভারিয়ান আন্দোলন এবং ভারতের নর্মদা বাঁচাও আন্দোলন গণতন্ত্রের একটি অংশগ্রহণমূলক মডেলকে ঘিরে নিজেদের সংগঠিত করেছিল।

৭. ইসলামী গণতন্ত্র (Islamic democracy)

গণতন্ত্রের এই রূপটি একই সাথে একটি গণতান্ত্রিক কাঠামো বজায় রাখার পাশাপাশি পাবলিক নীতিতে ইসলামী আইন প্রয়োগ করতে চায়। ইসলামী গণতন্ত্রের তিনটি প্রধান বৈশিষ্ট্য রয়েছে। 

প্রথমত, নেতারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হয়। 

দ্বিতীয়ত, সবাই শরীয়া আইনের অধীন – নেতা সহ। 

তৃতীয়ত, নেতৃবৃন্দকে অবশ্যই ‘শুরা’ অনুশীলন করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে হবে, যা নবী মুহাম্মদের অনুশীলনের একটি বিশেষ রূপ।

এটি ইসলামী রাজনৈতিক ব্যবস্থার মৌলিক নীতি, যা কুরআনে সুপারিশ করা হয়েছে। এই তিনটি বৈশিষ্ট্য পূরণকারী দেশগুলো হল আফগানিস্তান এবং পাকিস্তান।

প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে ইমেল : info@banglanewsexpress.com

আমরা আছি নিচের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুলোতে ও

শেয়ার করুন:

বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস এর সর্বশেষ আপডেট পেতে Google News অনুসরণ করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *