ইলেকট্রনিক কমার্স বা ইকমার্স এর গুরুত্ব বিশ্লেষণ, ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেম বর্ণনা করতে হবে

ইলেকট্রনিক কমার্স বা ইকমার্স এর গুরুত্ব বিশ্লেষণ, ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেম বর্ণনা করতে হবে

এইচ এস সি পরীক্ষা প্রস্তুতি শিক্ষা
শেয়ার করুন:
শ্রেণি: HSCভোকেশনাল 2021 বিষয়: কম্পিউটার অপারেশন এন্ড মেইনটেন্যান্স (১) ২য় পত্র এসাইনমেন্টেরের উত্তর 2021
এসাইনমেন্টের ক্রমিক নংঃ 06 বিষয় কোডঃ 82521
বিভাগ: ভোকেশনাল শাখা

এসাইনমেন্ট শিরোনামঃ ইলেকট্রনিক কমার্স বা ইকমার্স এর গুরুত্ব বিশ্লেষণ।।

শিখনফল/বিষয়বস্তু :

  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেম 
  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেমের সুবিধা 
  • ইলেকট্রনিক কমার্স বা ই-কমার্স ও ব্যবহার 
  • ই-কমার্সের মাত্রা ও প্রকারভেদ 

নির্দেশনা (সংকেত/ ধাপ/ পরিধি): 

  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেম বর্ণনা করতে হবে
  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেমের সুবিধা বর্ণনা করতে হবে
  • ইলেকট্রনিক কমার্স বা ই-কমার্স ও ব্যবহার বর্ণনা করতে হবে
  • ই-কমার্সের মাত্রা ও প্রকারভেদ বর্ণনা করতে হবে

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেম বর্ণনা করতে হবে

ওয়েব ভিত্তিক তথ্য মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তির অনেক সুবিধা প্রদর্শন করে। আজকের দ্রুত ব্রডব্যান্ড সংযোগ ব্যবহার করে, বিশ্বের যেকোনো স্থানে একটি কম্পিউটারে অত্যাধুনিক বিষয়বস্তু প্রবাহিত করা সম্ভব। এটি অনেক লোকের জন্য একটি সুবিধা কারণ তথ্য তাদের জন্য সুবিধাজনক যেখানেই এবং যখনই তাদের জন্য সুবিধাজনক তথ্য পাওয়া এবং পড়তে পারে, যা একজন ব্যস্ত নির্বাহীর জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হতে পারে। উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ইন্টারেক্টিভ মাল্টিমিডিয়া সামগ্রী এখন ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়।

ওয়েব ইনফরমেশন সিস্টেম, বা ওয়েব ভিত্তিক তথ্য ব্যবস্থা, একটি তথ্য ব্যবস্থা যা ইন্টারনেট ওয়েব প্রযুক্তি ব্যবহার করে তথ্য এবং সেবা প্রদান করে, ব্যবহারকারীদের বা অন্যান্য তথ্য সিস্টেম/অ্যাপ্লিকেশনগুলিতে। এটি একটি সফটওয়্যার সিস্টেম যার প্রধান উদ্দেশ্য হাইপারটেক্সট ভিত্তিক নীতি ব্যবহার করে তথ্য প্রকাশ এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • ওয়েব বেজড্ ইনফরমেশন সিস্টেমের সুবিধা বর্ণনা করতে হবে

খরচ কম:

একটি ওয়েব ভিত্তিক অ্যাপ্লিকেশন একটি ওয়েব ব্রাউজারে চলে। এর মানে হল যে একটি একক, প্রতিক্রিয়াশীল ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন একাধিক ডিভাইসের প্রকারে ব্যবহার করা যেতে পারে। যদিও ওয়েব অ্যাপ বিভিন্ন ব্রাউজারে পরীক্ষা করার প্রয়োজন হবে, কিন্তু বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেমে তাদের পরীক্ষা করার প্রয়োজন নেই। এটি উন্নয়ন এবং পরীক্ষা অনেক সহজ করে তোলে। এটি উন্নয়ন ব্যয় হ্রাস করে এবং বিকাশের সময়কে সংক্ষিপ্ত করে।

সহজ ইনস্টলেশন এবং রক্ষণাবেক্ষণ:

প্রতিটি ডিভাইসে লোড করা traditionalতিহ্যবাহী সফ্টওয়্যার থেকে ভিন্ন, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনগুলি একটি হোস্ট সার্ভার থেকে চলে। স্থানীয় মেশিনে কোন ইনস্টলেশন নেই। সফ্টওয়্যার আপগ্রেড সব কেন্দ্রীয়ভাবে সম্পন্ন করা হয়। এটি সফ্টওয়্যার ইনস্টল এবং আপগ্রেড করার খরচ কমায়। এটি নিশ্চিত করে যে সমস্ত ব্যবহারকারী সর্বদা সফ্টওয়্যারটির একই সংস্করণ ব্যবহার করছেন।

যে কোন জায়গায় অ্যাক্সেসযোগ্য:

ব্যবহারকারীরা যে কোনো জায়গায় ওয়েব ভিত্তিক সিস্টেম ব্যবহার করতে পারেন। যতক্ষণ তাদের একটি ইন্টারনেট সংযোগ, একটি ওয়েব ব্রাউজার এবং যথাযথ লগইন বিশদ আছে। এর মানে হল যে ব্যবহারকারীরা অফিস থেকে দূরে থাকার সময় তাদের প্রয়োজনীয় ডেটা অ্যাক্সেস করতে পারে। এটি কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করার সম্ভাবনাও এনে দেয়।

সহজ ডেটা শেয়ারিং এবং সহযোগিতা:

ওয়েব-ভিত্তিক সিস্টেমের মাধ্যমে ডেটা ভাগ করা এবং প্রকল্পে সহযোগিতা করা অনেক সহজ। ডেটা একটি কেন্দ্রীয় স্থানে সংরক্ষণ করা হয়, যাতে ব্যবহারকারীরা ডেটা শেয়ার করতে পারে এবং প্রকল্পে একসাথে কাজ করতে পারে। ওয়েব-ভিত্তিক সিস্টেমগুলি বিচ্ছিন্ন ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশনগুলির চেয়ে সংহত করা সহজ।

কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা:

যেহেতু ওয়েব সার্ভারগুলিতে ওয়েব অ্যাপস ইনস্টল করা আছে, তাই নিরাপত্তা একজন আইটি পেশাদার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এটি অনেক স্থানীয় ক্লায়েন্ট পিসিতে সংবেদনশীল কর্পোরেট তথ্য এড়িয়ে যায়, যা এতটা নিরাপদ নয়। কর্মীরা যখন অফিস থেকে দূরে থাকেন তখন একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ডেটা অ্যাক্সেস করতে পারেন। সুতরাং, একটি নিরাপদ কেন্দ্রীয় অবস্থান ছাড়া অন্য কোথাও ডেটা সংরক্ষণ করার প্রয়োজন নেই।

হার্ডওয়্যার খরচ কম:

ওয়েব ভিত্তিক সিস্টেমগুলি শক্তিশালী ক্লায়েন্ট পিসির প্রয়োজনীয়তা দূর করতে পারে। হোস্ট সার্ভারে প্রসেসিং করা হয়। সর্বাধিক চাহিদার জন্য হোস্ট সার্ভারটি একই সাথে দক্ষতার সাথে ইঞ্জিনিয়ার করা যায়। সুতরাং, ক্লায়েন্ট পিসির জন্য স্টোরেজ, প্রসেসর এবং মেমরির প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করা যেতে পারে। একটি সম্পূর্ণ সংগঠন জুড়ে নেওয়া, এটি কিছু ব্যবসার জন্য একটি বিশাল খরচ বাঁচাতে পারে।

উন্নত দক্ষতা:

বেশিরভাগ ব্যবসায়, ওয়েব-ভিত্তিক সমাধানগুলি স্থাপন করা ব্যবসায়িক প্রক্রিয়াগুলিকে সহজ করে। প্রায়শই, কাগজ-ভিত্তিক প্রক্রিয়াগুলি কর্মপ্রবাহ-ভিত্তিক সমাধান দ্বারা প্রতিস্থাপিত হতে পারে। ব্যবসায়িক প্রক্রিয়াগুলির উন্নতি উচ্চ কর্মচারীর উত্পাদনশীলতা এবং কম খরচ হতে পারে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • ইলেকট্রনিক কমার্স বা ই-কমার্স ও ব্যবহার বর্ণনা করতে হবে

ইলেকট্রনিক কমার্স বা ই-কমার্স (কখনও কখনও ই-কমার্স হিসাবে লেখা হয়) হল একটি ব্যবসায়িক মডেল যা কোম্পানি এবং ব্যক্তিদের ইন্টারনেটে জিনিস কিনতে এবং বিক্রি করতে দেয়। ই-কমার্স নিম্নলিখিত চারটি প্রধান বাজার বিভাগে কাজ করে

ই-কমার্স হচ্ছে ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়।

ই-কমার্স ইট-ও-মর্টার স্টোরের বিকল্প হতে পারে, যদিও কিছু ব্যবসা উভয়ই বজায় রাখা পছন্দ করে।

ই-কমার্সের মাধ্যমে আজ প্রায় যেকোনো কিছু কেনা যায়।

ই-কমার্স ব্যবসাগুলিকে তাদের পণ্য বা পরিষেবার জন্য সস্তা এবং আরও দক্ষ বিতরণ চ্যানেল সরবরাহ করে ব্যাপক বাজার উপস্থিতি প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করেছে। উদাহরণস্বরূপ, গণ খুচরা বিক্রেতা টার্গেট তার ইট-ও-মর্টার উপস্থিতি একটি অনলাইন স্টোরের সাথে পরিপূরক করেছে যা গ্রাহকদের কাপড় থেকে কফি প্রস্তুতকারক টুথপেস্ট থেকে অ্যাকশন পরিসংখ্যান পর্যন্ত সবকিছু কিনতে দেয়।

এর বিপরীতে, অ্যামাজন অনলাইন বিক্রয় এবং পণ্য সরবরাহের একটি ই-কমার্স-ভিত্তিক মডেল দিয়ে তার ব্যবসা চালু করেছে। ছাড়িয়ে যাবেন না, স্বতন্ত্র বিক্রেতারা ক্রমবর্ধমানভাবে তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ই-কমার্স লেনদেনে জড়িত। অবশেষে, ডিজিটাল মার্কেটপ্লেসগুলি যেমন ইবে বা ইটিসি এক্সচেঞ্জ হিসাবে কাজ করে যেখানে ক্রেতা এবং বিক্রেতার সংখ্যাগরিষ্ঠতা ব্যবসা পরিচালনার জন্য একত্রিত হয়।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

  • ই-কমার্সের মাত্রা ও প্রকারভেদ বর্ণনা করতে হবে
  • ১৯৭১ বা ১৯৭২ : উন্নত গবেষণা প্রকল্প এজেন্সী নেটওয়ার্ক (আরপানেট) ব্যাবহারে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় সেন্টারসমূহ এবং ইন্সটিটিউটসমূহ ও ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি-র শিক্ষার্থীদের মধ্যে গাঁজাপাতার ক্রয় বিক্রয়ের মাধ্যমে এই রূপ বাণিজ্যের সূত্রপাত ঘটে। যাকে জন মার্কফ তার বই ‘ডোরমাউস কি বলেছে’ তে ই-কমার্সের চূড়ান্ত আইন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

ব্যবসায়িক প্রয়োগ

  • ব্যবসা-থেকে-ব্যবসা (B2B):

ব্যবসা-থেকে-ব্যবসা ইলেকট্রনিক কমার্স সম্পাদিত হয় একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে। ৮০ শতাংশের (৮০%) মত ইলেকট্রনিক কমার্স ব্যবসা-থেকে-ব্যবসা প্রকার এর অন্তর্ভুক্ত।

  • ব্যবসা-থেকে-গ্রাহক (B2C) ব্যবসা-থেকে-গ্রাহক ইলেকট্রনিক কমার্স সম্পাদিত হয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গ্রাহকের মধ্যে। এই প্রকারে দ্বিতীয় সর্বাপেক্ষা বেশি ইলেকট্রনিক বাণিজ্য সম্পাদন হয়ে থাকে।
  • ব্যবসা-থেকে-সরকার (B2G):

ব্যবসা-থেকে-সরকার ইলেকট্রনিক কমার্স সম্পাদিত হয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও রাষ্ট্রীয় খাতের মধ্যে। এটি সাধারনত ব্যবহৃত হয়ে থাকে রাষ্ট্রীয় কেনা/বেচা, লাইসেন্স সংক্রান্ত কার্যাবলী, কর প্রদান ইত্যাদি ক্ষেত্রে।

  • গ্রাহক-থেকে-গ্রাহক (C2C):

গ্রাহক-থেকে-গ্রাহক ইলেকট্রনিক কমার্স সম্পাদিত হয় একাধিক ব্যক্তি ও গ্রাহকের মধ্যে। ইলেকট্রনিক বাজার ও অনলাইন নিলাম এর মাধ্যমে সাধারণত এই ধরনের বাণিজ্য সম্পাদিত হয়।

  • মোবাইল কমার্স (m-commerce):

মোবাইল কমার্স ইলেকট্রনিক কমার্স সম্পাদিত হয় তারবিহীন প্রযুক্তি যেমন মোবাইল হ্যান্ডসেট বা পারসোনাল ডিজিটাল অ্যাসিস্টেন্ট (PDA) এর মাধ্যমে। তারবিহীন যন্ত্রের মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদানের গতি ও নিরাপত্তা বৃদ্ধির সাথে সাথে এই ধরনের বাণিজ্য জনপ্রিয়তা লাভ করছে।

  • গ্রাহক থেকে সরকার (সি টু জি):

কখনো সরসরি জনগনের কাছ থেকে সরকার বিভিন্ন সেবার বিনিময় ফি বা কর নিয়ে থাকে। যখন এর মাঝে কোন মাধ্যমৈ থাকেনা তখন এটা গ্রাহক থেকে সরকার পক্রিয়া বলে বিবেচিত হয়। ডিজিটাল গভর্নেন্স-এর আওতার এ ধরনের সেবা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

[ বি:দ্র: নমুনা উত্তর দাতা: রাকিব হোসেন সজল ©সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত (বাংলা নিউজ এক্সপ্রেস)]

সবার আগে Assignment আপডেট পেতে Follower ক্লিক করুন

এসাইনমেন্ট সম্পর্কে প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে Google News <>YouTube : Like Page ইমেল : assignment@banglanewsexpress.com

অন্য সকল ক্লাস এর অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর সমূহ :-

  • ২০২১ সালের SSC / দাখিলা পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২১ সালের HSC / আলিম পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ভোকেশনাল: ৯ম/১০ শ্রেণি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • HSC (বিএম-ভোকে- ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স) ১১শ ও ১২শ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১০ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের SSC ও দাখিল এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক
  • ২০২২ সালের ১১ম -১২ম শ্রেণীর পরীক্ষার্থীদের HSC ও Alim এসাইনমেন্ট উত্তর লিংক

৬ষ্ঠ শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৭ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ ,

৮ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১ , ৯ম শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২১

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় SSC এসাইনমেন্ট :

উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় HSC এসাইনমেন্ট :

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *