গাজীপুর সিটিতে চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন মাদক ব্যবসা বেড়ে চলছে।

গাজীপুর সিটিতে চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন মাদক ব্যবসা বেড়ে চলছে।

জাতীয় দেশ
শেয়ার করুন:

গাজীপুরের ডিবি পুলিশের ইন্সপেক্টর আফজাল হোসেন একটি সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বলেছেন গাজীপুর সিটির ৩৩ নং ওয়ার্ডে বিভিন্ন মাদক ব্যবসা ও চাদাবাজি বেড়ে চলছে এছাড়াও শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ এলাকা থেকে ঝুট ব্যবসা বিভিন্ন রাস্তা সংস্কার ও নতুন বাড়ি তৈরি করাকে কেন্দ্র করে চাঁদাবাজি ও জুয়ার অভিযোগে পৃথক অভিযানে ১১ জনকে আটক করেছে গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। বিভিন্ন সময়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে ৩ জন ও জুয়া খেলার অভিযোগে ৮ জনকে আটক করা হয়।

গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক (ইনস্পেক্টর) আফজাল হোসেন গত শনিবার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোড় এলাকার কাজী ফার্মস লিমিটেডে আরিফ নামে এক ব্যক্তি পণ্য আনা নেয়ার জন্য গাড়ি পার্কিং করে থাকেন। অভিযুক্তরা বেশ কিছুদিন যাবত তার কাছে চাঁদা দাবি করে আসছিলেন। পরে তিনি এ ব্যাপারে অভিযোগ করলে অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করা হয়। আটককৃত সবাই কাওরাইদ ইউনিয়নের বাসিন্দা আটককৃত সকলেই আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গ সংগঠনের সাথে যুক্ত বলে দাবি করেন এই বিষয়ে ডিবি পুলিশের ইনস্পেক্টর আফজাল হোসেন জানান।

এদিকে গাজীপুর সিটির ৩৩নং ওয়ার্ডে বেড়ে চলছে বিভিন্ন ধরনের মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজি।মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ করতে হবে বলে জানিয়েছেন ডিবি আফজাল হোসেন।এছাড়াও গাজীপুর পৌরসভার বেড়াইদেরচালা এলাকার জনৈক আফির উদ্দিন বন্ধুদের নিয়ে ট্রাক টার্মিনালের ভেতর ফাঁকা জায়গায় আসর বসিয়ে জুয়া খেলার আয়োজন করেন। পরে গোপন সূত্রের ভিত্তিতে খবর পেয়ে টার্মিনালে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। অভিযানে ৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় আটকদের কাছ থেকে তাসের কার্ড ও জুয়া খেলার নগদ ২০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

ডিবি ইনস্পেক্টর আফজাল হোসেন জানান আটককৃতদের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।চাদাবাজি ও মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ডিবি ইন্সপেক্টর আফজাল হোসেন।

মোঃ ফিরোজ খান:

শেয়ার করুন:

আপনার মূল্যবান মতামত দিন